চবিতে ভবিষ্যত দর্শনচর্চার রূপরেখা বিষয়ক কর্মশালা

বিশ্ব ব্যাংকের অর্থায়নে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন (ইউজিসি) পরিচালিত হেকেপ সিপি-৩১৭০ এবং চ.বি. দর্শন বিভাগের যৌথ উদ্যোগে আজ (২৮ ডিসেম্বর ২০১৭) বৃহস্পতিবার চ.বি. কলা ও মানববিদ্যা অনুষদের ২নং গ্যালারিতে ‘বাঙালির ভবিষ্যত দর্শনচর্চার রূপরেখা’ শীর্ষক একটি কর্মশালা-সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে ভাষণ দেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. শিরীণ আখতার। এতে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন চ.বি. কলা ও মানববিদ্যা অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. মো. সেকান্দর চৌধুরী এবং মুল আলোচক হিসেবে বক্তব্য রাখেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ড. লুৎফুর রহমান।
উপ-উপাচার্য তাঁর ভাষণে দর্শন বিভাগের উদ্যোগে একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে সেমিনার আয়োজন করায় আয়োজকবৃন্দকে ধন্যবাদ জানান। তিনি বলেন, দর্শন হচ্ছে সকল বিজ্ঞানের বিজ্ঞান। তাই বিবেককে জাগ্রত করতে এবং যুক্তি নির্ভর সমাজ-রাস্ট্র প্রতিষ্ঠায় দর্শন চর্চার বিকল্প নেই। আজকের কর্মশালা-সেমিনারে জ্ঞানগর্ভ আলোচনা, মতামত এবং জ্ঞান বিনিময় বাঙালির দর্শন চর্চার ক্ষেত্র বিকাশ ও সম্প্রসারণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ও অবদান রাখবে বলে তিনি প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন।

চ.বি. দর্শন বিভাগের সভাপতি ও হেকেপ সিপি ৩১৭০ এর সাব প্রজেক্ট ম্যানেজার প্রফেসর ড. এন.এইচ.এম. আবু বকর-এর সভাপতিত্বে এবং উক্ত বিভাগের সহকারী অধ্যাপক জনাব মাছুম আহমেদের পরিচালনায় এতে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন অনুষ্ঠানে আলোচক হিসেবে বক্তব্য রাখেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগের ইউজিসি প্রফেসর গালিব আহসান খান ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় দর্শন বিভাগের প্রফেসর ড. আহমেদ জামাল আনোয়ার।

দর্শন বিভাগের এলামনাই জনাব সরোয়ার কামাল কর্তৃক উক্ত বিষয়ের উপর প্রেরিত একটি লেখা পাঠ করেন দর্শন বিভাগের প্রভাষক জনাব জওশন আরা জলি। অনুষ্ঠান দর্শন বিভাগসহ কলা ও মানববিদ্যা অনুষদের অন্তর্গত বিভিন্ন বিভাগের সম্মানিত শিক্ষক ও শিক্ষার্থীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। সেমিনারে মুক্ত আলোচনা পর্ব অনুষ্ঠিত হয়।

পছন্দের আরো পোস্ট