অবৈধ বসবাস

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের তিনটি ছাত্র হলে বসবাসকারী শিক্ষার্থীদের অধিকাংশই অবৈধভাবে থাকছেন। যার ফলে বৈধভাবে থাকা শিক্ষার্থীরা হলের সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। হল প্রশাসনের সীমাহীন গাফিলতির কারণে শিক্ষার্থীরা অবৈধভাবে থাকার সুযোগ পাচ্ছে বলে অভিযোগ করেন বৈধভাবে থাকা শিক্ষার্থীরা।
বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রদের জন্য রয়েছে শাহপরাণ হল, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল ও সৈয়দ মুজতবা আলী হল অন্যদিকে ছাত্রীদের জন্য রয়েছে প্রথম ছাত্রী হল ও বেগম সিরাজুন্নেসা চৌধুরী হল। এর মধ্যে ছাত্রী হলগুলোতে অধিকাংশ ছাত্রী ভর্তি থাকলেও ছাত্র হলগুলোতে ভর্তির হার অত্যনÍ কম। তবে হল কর্তৃপক্ষ কঠোর হলে অবৈধভাবে হলে থাকার সুযোগ বন্ধ হয়ে যাবে বলে মনে করেন শিক্ষার্থীরা।
ছাত্র হলগুলোর অফিস সূত্রে জানা গেছে, শাহপরাণ হলের সাড়ে চার শতাধিক সিটের বিপরীতে ভর্তি  আছেন মাত্র ২৫০ জন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের পাঁচ শতাধিক সিটের বিপরীতে ভর্তি আছেন মাত্র ১৬০ জন, সৈয়দ মুজতবা আলী হলের ৬৮টি সিটের বিপরীতে ভর্তি আছেন মাত্র ২৬ জন । ভর্তি হওয়া শিক্ষার্থীদের সংখ্যা কম হলেও হলের কোন রুমই ফাঁকা নেই, এমনকি কোন কোন রুমে সিটসংখ্যার চেয়েও বেশি শিক্ষার্থী থাকছেন।
ইতিমধ্যে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল প্রশাসন হলে ভর্তি ও পূন: ভর্তির জন্য রবিবার বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে। আগামী ২ নভেম্বর পর্যন্ত ভর্তি কার্যক্রমের সময় বর্ধিত করা হয়েছে বলে বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়েছে।
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের প্রভোস্ট অধ্যাপক ড. এস এম হাসান জাকিরুল ইসলাম বলেন, বঙ্গবন্ধু হলে ২ নভেম্বর পর্যন্ত সময় নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছে। এই সময়ের মধ্যে যারা ভর্তি হবেনা তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
প্রথম ছাত্রী হলের প্রভোস্ট আমিনা পারভীন বলেন, আমাদের হলে অধিকাংশ ছাত্রীরাই ভর্তি হয়ে থাকেন। তবে এর মধ্যে দু-এক জন ব্যতিক্রম থাকতে পারে।
পছন্দের আরো পোস্ট