মাইক্রোসফট-ইয়াং বাংলা অ্যাওয়ার্ড জিতলো চুয়েট

চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (চুয়েট)-এর ইলেক্ট্রিক্যাল এন্ড ইলেক্ট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং (ইইই) বিভাগের তিন শিক্ষার্থী দৃষ্টি প্রতিবন্ধীদের জন্য ‘পাঠক’ নামক একটি ইলেক্ট্রনিক ডিভাইস/যন্ত্র তৈরি করে ‘মাইক্রোসফ্ট-ইয়াং বাংলা অ্যাওয়ার্ড-২০১৭’ জয়লাভ করেছেন। বিজয়ী দলটির নাম চুয়েট ‘আরএমএ টেসলা’। দলের সদস্যরা হলেন- চুয়েট ইইই বিভাগের ‘১১ ব্যাচের শিক্ষার্থী শুভাশিস দত্ত ও মাহাদী সরকার এবং ‘১২ ব্যাচের রিদওয়ান সামীর তানিম।

গত ২১ অক্টোবর (শনিবার), ২০১৭ খ্রি. বিকেলে রাজধানী ঢাকার সাভারে অবস্থিত শেখ হাসিনা ন্যাশনাল ইয়ুথ সেন্টারে আয়োজিত হয় জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড এর দ্বিতীয় আয়োজন। উক্ত অনুষ্ঠানে মাইক্রোসফট-ইয়াংবাংলা ইন্টার্নশিপে অংশগ্রহণকারীদের মধ্য থেকে সেরা ৩টি প্রকল্পকে মাইক্রোসফটের পক্ষ থেকে পাঁচ লক্ষ টাকা মুল্যের স্টার্টআপ ফান্ড দেওয়া হয়। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আইসিটি বিষয়ক উপদেষ্টা জনাব সজীব ওয়াজেদ জয় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বিজয়ীদের হাতে স্মারক চেক তুলে দেন।

উল্লেখ্য, প্রতিযোগিতায় দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় হতে মোট ৩০০ জন শিক্ষার্থী ১০০ টা দলে বিভক্ত হয়ে মোট ৯৬ টা প্রজেক্ট সাবমিট করে। এর মধ্যে মোট তিনটি প্রজেক্টকে চূড়ান্তভাবে নির্বাচন করা হয়। যার মধ্যে ‘আরএমএ টেসলা’ টিমের ‘পাঠক’ ডিভাইস প্রজেক্টটি অন্যতম সেরা হয়েছে।

প্রতিবন্ধীদের জন্য ‘পাঠক’ ডিভাইস সম্পর্কে উদ্ভাবকদের একজন জনাব রিদওয়ান সামীর তানিম বলেন, পাঠক এমন একটি ডিভাইস যার সাহায্যে একজন দৃষ্টি প্রতিবন্ধী সহজেই বই, সংবাদপত্র এমনকি যে কোন বাংলা টেক্সট পড়তে সক্ষম হবে। দৃষ্টি প্রতিবন্ধীরা সাধারণত দেখে পড়তে পারেন না। আমাদের ডিভাইসটি প্রথমে বই অথবা টেক্সটের ছবি তুলে নিবে। তারপর ছবির লেখাগুলোকে বাংলা ভয়েসে রুপান্তর করে। সবশেষে ওই অডিও ভয়েস দৃষ্টি প্রতিবন্ধী ব্যক্তিকে শোনাবে। ফলে ওই ব্যক্তি বইটিতে যা যা আছে তার সবই শুনতে পারবেন।

এদিকে গতকাল ২২ অক্টোবর (রবিবার), ২০১৭ খ্রি. চুয়েটের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ রফিকুল আলমের সাথে বিজয়ী দলের সদস্যরা উপাচার্য কার্যালয়ে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন। এ সময় ইইই বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ড. কাজী দেলোয়ার হোসেন এবং ‘আরএমএ টেসলা’ টিমের তিন সদস্য শুভাশিস দত্ত, মাহাদী সরকার ও রিদওয়ান সামীর তানিম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

পছন্দের আরো পোস্ট