চবিতে চারুশিল্পের সাম্প্রতিক সংগ্রহের উদ্বোধন

আজ (১৯ সেপ্টেম্বর) মঙ্গলবার চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় জাদুঘরের উদ্যোগে উক্ত জাদুঘরে ‘সমকালীন চারুশিল্পের সাম্প্রতিক সংগ্রহ’-এর শুভ উদ্বোধন হয়। এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে ভাষণ দেন এবং ফিতা কেটে সমকালীন শিল্পকলা গ্যালারি উদ্বোধন করেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী। এতে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. শিরীণ আখতার।

উপাচার্য তাঁর ভাষণে উপস্থিত সকলকে আন্তরিক শুভেচ্ছা জানিয়ে বলেন, জাদুঘর মানবসভ্যতার ইতিহাস ও ঐতিহ্যের স্মারক। তিনি আরও বলেন, মানবজাতির ইতিহাস, ঐতিহ্য, সংস্কৃতি সমাজ ও ভাষার সংগে সম্পর্কিত পুরানিদর্শন সংগ্রহ করে প্রত্যক্ষ জ্ঞান লাভের সুযোগ সৃষ্টিতে জাদুঘরে রয়েছে অসামান্য অবদান। তিনি বলেন, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় জাদুঘর দেশের বিশ্ববিদ্যালয়সমূহের একমাত্র একাডেমিক জাদুঘর।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ঐতিহ্যবাহী চারুকলা ইনস্টিটিউটের চারজন গুণী শিক্ষক ও শিল্পীর শিল্পকর্ম সমৃদ্ধ আজকের উদ্বোধনকৃত সমকালীন শিল্পকলা গ্যালারি এ বিশ্ববিদ্যালয় জাদুঘরকে অধিকতর সমৃদ্ধ করেছে।

উপাচার্য চারজন গুণী শিল্পীকে অনুদান হিসেবে তাঁদের শিল্পকর্ম চ.বি. জাদুঘরকে উপহার হিসেবে প্রদান করায় শিল্পীবৃন্দকে বিশেষ ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন। শিক্ষক-গবেষক ও ভবিষ্যত প্রজন্মকে এ চারুশিল্পসমূহ তাদের গবেষণাকর্মকে সমৃদ্ধ করতে বিশেষ অবদান রাখবে মাননীয় উপাচার্য এ আশাবাদ ব্যক্ত করে এর শুভ উদ্বোধন ঘোষণা করেন। পরে মাননীয় উপাচার্য অতিথিবৃন্দকে সাথে নিয়ে শিল্পকর্ম ঘুরে দেখেন।

উপ-উপাচার্য তাঁর ভাষণে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বনামধন্য শিল্পীবৃন্দের মূল্যবান শিল্পকর্ম বিশ্ববিদ্যালয় জাদুঘরকে উপহার হিসেবে প্রদান করায় তাঁদেরকে আন্তরিক অভিনন্দন জানান।

চবি জাদুঘরের পরিচালক প্রফেসর ড. ইমরান হোসেনের সভাপতিত্বে ও পরিচালনায় অনুষ্ঠানে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিনবৃন্দ, বিভাগীয় সভাপতি ও ইনস্টিটিউটের পরিচালকবৃন্দ, শিক্ষক-গবেষকবৃন্দ এবং অফিস প্রধানবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, চবি চারুকলা ইনস্টিটিউটের যে চারজন প্রথিতযশা শিল্পীর শিল্পকর্ম এ গ্যালারিতে স্থান পেয়েছে তাঁরা হলেন-প্রফেসর অলক রায়, প্রফেসর ঢালী আল মামুন, সহকারী অধ্যাপক জনাব কে এম আবদুল কাইয়ুম এবং সহকারী অধ্যাপক জনাব সৌমেন দাশ।

পছন্দের আরো পোস্ট