চবিতে ড.আবদুল করিম স্মরণ সভা

উপমহাদেশের প্রখ্যাত ইতিহাসবিদ চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য প্রয়াত প্রফেসর ড. আবদুল করিমের দশম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে চ.বি. ইতিহাস বিভাগের উদ্যোগে গতকাল (২৪ জুলাই ২০১৭) সোমবার বেলা ১১ টায় বিশ্ববিদ্যালয় কলা ও মানববিদ্যা অনুষদের ২ নং গ্যালারিতে এক স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে ভাষণ দেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী। এতে বিশেষ অতিথি হিসেবে ভাষণ দেন চ.বি. মাননীয় উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. শিরীণ আখতার ।

উপাচার্য তাঁর ভাষণে শিক্ষাবিদ ও ইতিহাসবিদ প্রফেসর ড. আবদুল করিমের স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করেন এবং মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন। তিনি বলেন, ক্ষণজন্মা পুরুষ এ মেধাবী ও গুণী শিক্ষক জীবদ্দশায় ছিলেন আত্মনিবেদিত একজন ইতিহাস গবেষক। বিশ্বের বিভিন্ন উন্নত বিশ্ববিদ্যালয়ে তাঁর রচিত পুস্তকসমূহ পাঠ্যক্রমে অন্তর্ভূক্ত আছে। তাঁর এ অসাধারণ পান্ডিত্য ও প্রতিভাগুণে দেশে-বিদেশে তিনি একজন প্রতিথযশা ইতিহাসবিদ হিসেবে সমাদৃত।

তিনি আরও বলেন, ইতিহাস চর্চা জাতিকে করে আত্মপ্রত্যয়ী ও মানবমুখী, এছাড়া সত্যনুসন্ধানী, তথ্যনির্ভর ও যুক্তিনিষ্ঠ ইতিহাস দেশ ও জাতিকে যেমন আলোর পথ দেখায় তেমনি খন্ডিত ও বিকৃত ইতিহাস জাতিকে করে বিভ্রান্ত এবং প্রজন্মের সন্তানদের করে বিপথগামী। এ সত্যতা অনুধাবন করে প্রফেসর ড. আবদুল করিম তাঁর লেখনীর মাধ্যমে বর্তমান ও ভবিষ্যতের সেতু বন্ধন রচনায় সত্য অনুসন্ধানের চর্চা করেছেন। তাই এ উপমহাদেশের ইতিহাস গবেষণা ও ইতিহাস চর্চায় প্রফেসর ড. আবদুল করিম ইতিহাসের শিক্ষক-গবেষক ও শিক্ষার্থীদের জন্য এক আলোকবর্তিকা স্বরূপ। উপাচার্য ইতিহাস চর্চার ক্ষেত্রে প্রজন্মের সন্তানদের দেশ-কাল সচেতন থেকে প্রফেসর ড. আবদুল করিমের জীবনদর্শন অনুসরণ করার আহবান জানান।

উপ-উপাচার্য তাঁর ভাষণে প্রফেসর ড. আবদুল করিমের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করে বলেন, ইতিহাস মানুষকে করে শেকড় সন্ধানী। প্রফেসর ড. আবদুল করিম যে সৃষ্টিকর্ম রেখে গেছেন এর মাঝে তিনি চিরঞ্জীব। মাননীয় উপ-উপাচার্য ইতিহাসের শিক্ষক-গবেষক ও শিক্ষার্থীদের প্রফেসর ড. আবদুল করিমের অসমাপ্ত কাজগুলো সমাপ্ত করার ক্ষেত্রে আন্তরিক হওয়ার আহবান জানান।

চ.বি ইতিহাস বিভাগের সভাপতি প্রফেসর ড. মোহাম্মদ মাহবুবুল হকের সভাপতিত্বে এ স্মরণসভায় ‘আবদুল করিমের ইতিহাস চর্চার ধারা’ শীর্ষক প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ইতিহাস বিভাগের প্রফেসর ড. মোহাম্মদ জাহিদুর রহমান। ইতিহাস বিভাগের প্রফেসর ড. মো. আবদুল্লাহ আল-মাসুম-এর পরিচালনায় উপস্থাপিত প্রবন্ধ এবং প্রফেসর ড. আবদুল করিমের বর্ণাঢ্য কর্মময় জীবনের বিভিন্ন দিক নিয়ে বক্তব্য রাখেন কলা ও মানববিদ্যা অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. মো. সেকান্দর চৌধুরী, বাংলা বিভাগের সভাপতি প্রফেসর ড. মোহাম্মদ মহীবুল আজিজ এবং ইতিহাস বিভাগের প্রফেসর ড. মোহাম্মদ আলী চৌধুরী। স্মরণসভায় প্রফেসর ড. আবদুল করিমের জীবন-বৃৃত্তান্ত পাঠ করেন উক্ত বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. শওকত আরা বেগম। অনুষ্ঠানে চ.বি. বিভিন্ন বিভাগের সম্মানিত শিক্ষক এবং শিক্ষার্থীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

পছন্দের আরো পোস্ট