রোবট আবিস্কার করল ইবি শিক্ষার্থী শামিম

2স্মার্টফোন নিয়ন্ত্রিত রোবট আবিষ্কার করেছে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী শামিম হাসান। রোবটটি উদ্ধারকাজ এবং গোপন তথ্য সংগ্রহের কাজে ব্যবহার করা যাবে। যেসব স্থানে সাধারণ মানুষের যাওয়া সম্ভব নয়, সেখানে এ রোবটটি অনায়াসে যেতে পারবে এবং সেখানকার তথ্য ও ছবি সংগ্রহ করতে পারবে। এটি স্মার্টফোনচালিত রোবট। এর সবকিছুই মোবাইল ফোন দ্বারা নিয়ন্ত্রণ করা যাবে। এতে রয়েছে একটি ক্যামেরা এবং মাইক্রোফোন। যার মাধ্যমে রোবটটি শব্দসহ ভিডিও চিত্র ধারণ করে কেন্দ্রে পাঠাতে পারে। রোবটের চারপাশে কোনো বস্তুর অবস্থান জানার জন্য এর গোপন ক্যামেরাটি ১৮০ ডিগ্রি পর্যন্ত ঘুরে ভিডিও করতে পারবে এবং তা সরাসরি মনিটরে দেখা যাবে। রোবটের একটি হাতও আছে। এর দ্বারা কোনো নমুনা বস্তুকে তুলে নিয়ে আসতে পারবে। রোবটের গতিবিধিসহ যাবতীয় কার্যক্রম একটি মনিটরে দেখা যাবে। যা দেখে খুব সহজেই নিয়ন্ত্রণকারী একটি স্মার্টফোনের মাধ্যমে রোবটকে পরিচালনা করতে পারবে। রোবটটি কোনোরুপ বৈদ্যুতিক তার ছাড়াই কেন্দ্রে তথ্য সরবরাহ করতে পারে।

 

এস এম শামীম হসান জানান, রোবটটি তৈরি করতে প্রায় দুই মাস সময় লেগেছে। এই রোবটে ব্লুটুথ মডিউল ব্যবহার করা হয়েছে। যদি ওয়াই-ফাই মডিউল ব্যবহার করা যায়, তাহলে এটি আরো দূর থেকে নিয়ন্ত্রণ করা যাবে। বর্তমানে এটি ৫০ মিটার দূর থেকে নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব।

 

উদ্ভাবক এ এস এম শামিম হাসান ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ফলিত পদার্থ ইলেক্ট্রনিক্স অ্যান্ড কমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ২০০৯-১০ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী। বর্তমানে সে একই বিভাগের মাস্টার্সে অধ্যয়নরত। শামিম কুষ্টিয়া জেলার মিরপুর উপজেলার হাজী আব্দুল গণির ছেলে।

 

এর আগে সে ভিন্নরুপে ওয়াটার লেভেল কন্ট্রোলার, অটোমেটিক সোলার ট্রেকার, স্মার্টফোন কন্ট্রোল হোম সিকিউরিটি লক, অটোমেটিক জেনারেটর ভোল্টেজ কন্ট্রোলার অ্যান্ড স্টাবলাইজার, অটোমেটিক ফ্যান স্পিড কন্ট্রোলারসহ বেশ কয়েকটি যন্ত্র আবিষ্কার করেছে। তার আবিষ্কারের ধারা অব্যহত রাখতে তিনি সরকারি সহযোগিতা কামনা করেছেন।

 

শামীমের বাবা আবদুল গনি ছেলের রোবট উদ্ভাবনে অনের খুশি। তিনি বলেন, ছোটবেলা থেকেই সে এসব কাজে মেতে থাকতো। আমরা তাকে উৎসাহ যোগাতাম। এরই মধ্যে বেশ কয়েকটি জিনিস বানিয়েছে। সরকারি সহযোগিতা পেলে এসব ক্ষুদে বিজ্ঞানিরা অনেক বড় হতে পারবে।#

 

 

লেখাপড়া২৪.কম/ইবি/আরএইচ-৪৭২৫

পছন্দের আরো পোস্ট