নারায়ণগঞ্জ সরকারি মহিলা কলেজে ভর্তি বাণিজ্য

নারায়ণগঞ্জ সরকারি মহিলা কলেজে ছাত্রলীগের এক নেতার বিরুদ্ধে ভর্তি-বাণিজ্যের অভিযোগ ওঠেছে। এ অভিযোগে গত দুদিন ধরে বিক্ষোভ করছেন কলেজের সাধারণ শিক্ষার্থীরা। বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, মঙ্গলবার সকালে একাদশ শ্রেণীতে ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীরা কলেজে এসে দেখেন, নোটিশ বোর্ডে ভর্তি কার্যক্রম শেষ লেখা টাঙানো হয়েছে। এ ব্যাপারে কলেজের অফিস কক্ষে কথা বলতে চাইলেও শিক্ষার্থীদের কোনো সদুত্তর দেননি কর্মকর্তারা।Naraynganj

 

 

সাধারণ শিক্ষার্থীরা অভিযোগ করেন, সরকারি তোলারাম কলেজের ছাত্রলীগ নেতা মোস্তাফিজুর রহমান টিটুসহ ছাত্রলীগের কয়েক নেতা অধ্যক্ষের কক্ষে বসে জিপিএ-২ পাওয়া শিক্ষার্থীদের ভর্তি করান। কিন্তু যারা জিপিএ-৫ পেয়েছেন তারা ভর্তি হতে পারেননি। তোলারাম কলেজে ভর্তি-বাণিজ্যের অভিযোগে বিতাড়িত হয়ে এখন সরকারি মহিলা কলেজে ভর্তি-বাণিজ্য শুরু করেছেন টিটু।

 

 

ছাত্র ফেডারেশন নারায়ণগঞ্জ জেলা কমিটির নেতা ও সাধারণ শিক্ষার্থীরা বুধবারও বিক্ষোভ কর্মসূচির আয়োজন করেন। ছাত্র ফেডারেশন নারায়ণগঞ্জ জেলা শাখার সম্পাদক রিয়া আক্তার জানান, বিষয়টি সুরাহা না হলে এবং ছাত্রলীগের ভর্তি-বাণিজ্য বন্ধ না করলে অধ্যক্ষকে অবরুদ্ধসহ কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে। তবে ছাত্রলীগ নেতা মোস্তাফিজুর রহমান টিটু জানান, এ অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা, বানোয়াট ও ভিত্তিহীন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে মহিলা কলেজের একাধিক শিক্ষক জানান, এ বছর এইচএসসিতে প্রায় ৫০০ শিক্ষার্থী ভর্তি করার কথা ছিল। কিন্তু শিক্ষার্থীরা ভর্তি-পরীক্ষা দেয়ার পর পুরো তালিকা নোটিশ বোর্ডে না দিয়ে ছাত্রলীগের টিটু, বদিউজ্জামান সেটি নিজেদের কাছে নিয়ে নেন। এর পর তারা টাকার বিনিময়ে নিজেদের পছন্দমতো শিক্ষার্থীদের ভর্তি করান।

 

এতে ক্ষুব্ধ হয়ে সোমবার দুপুরে অধ্যক্ষসহ অন্যান্য শিক্ষকরা কলেজ ত্যাগ করেন। এ ব্যাপারে কলেজ কর্তৃপক্ষ কোনো মন্তব্য করতে রাজি হয়নি।

 

 

স: ইএইচ

পছন্দের আরো পোস্ট