এআইপি সম্মাননা পাচ্ছেন সাহেলা আবেদীন

কৃষিক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের জন্য চট্টগ্রাম থেকে এআইপি সম্মাননা কার্ড পাচ্ছেন তিলোত্তমা চট্টগ্রাম এর প্রতিষ্ঠাতা এবং চেয়ারপারসন সাহেলা আবেদীন (রীমা)। তিনি বন্দরগনগরী চট্টগ্রাম থেকে প্রথম নারী হিসেবে এই সম্মাননা পাচ্ছেন। তিনি সংগঠন ক্যাটাগরিতে দ্বিতীয় স্থান লাভের গৌরব অর্জন করেছেন। এতে প্রথম স্থানে আছেন মিডিয়া ব্যক্তিত্ব শাইখ সিরাজ।

সাহেলা আবেদীন (রীমা) এর আগে বৃক্ষরোপণ এবং ছাদ কৃষিতে অবদানের জন্য তিনি চট্টগ্রাম উত্তর বন বিভাগ আয়োজিত বৃক্ষমেলা-২০১৯ এ দ্বিতীয় স্থান বৃক্ষমেলা-২০১৮ এ তৃতীয় স্থান এবং চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন আয়োজিত বৃক্ষমেলা-২০১৯ এবং ২০২২ইং এ বিশেষ সম্মাননা লাভ করেন।

পাঁচটি ক্যাটাগরিতে ২২ জনকে ২০২১ সালের জন্য ‘কৃষিক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি (এগ্রিকালচারাল ইম্পর্ট্যান্ট পারসন- এআইপি)’ সম্মাননা দেবে কৃষি মন্ত্রণালয়। দ্বিতীয়বারের মতো কৃষিক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের এআইপি সম্মাননা দেওয়া হচ্ছে। আগামী ৭ জুলাই ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে মনোনীতদের হাতে এআইপি কার্ড তুলে দেওয়া হবে।

Post MIddle

সাহেলা আবেদীন (রীমা)-এর সামাজিক দায়বদ্ধতা, সাংগঠনিক দক্ষতা, সাংষ্কৃতিক সম্পৃক্তার শুরু স্কুল জীবন থেকেই। কলেজ জীবনে যা পোক্ত হয়। এখন তা বিস্তৃত পরিসরে সমাদৃত। ১৯৯৬ সাল থেকে তিনি  পাড়া-মহল্লা, ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে বৃক্ষরোপণ, সামাজিক সচেতনতামূলক কার্যক্রম, ক্রীড়া ও সাংষ্কৃতিকভাবে নানা উদ্যোগ বাস্তবায়নের সামনের সারিতে ছিলেন।

উদ্যোক্তা হিসেবে গড়েছেন একাধিক সফল প্রতিষ্ঠান। একটি ছাদ হতে পারে একটি ফসলের মাঠ মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর এ ধারণাকে অনুসরণ করে ২০১৭ সালে গড়েছেন তিলোত্তমা চট্টগ্রাম নামের সংগঠন, যার কার্যক্রম সকলের নিকট সাধুবাদ পেয়েছে।

এছাড়া সবুজায়ন, নগর কৃষিসহ অনেক পরিবেশবান্ধব উদ্যোগ গ্রহণ ও সফল বাস্তবায়নের সাথে তিনি যুক্ত। যার স্বীকৃতি হিসেবে এসেছে অনেক প্রাতিষ্ঠানিক ও সামাজিক সম্মাননা। তবে মুক্তিযদ্ধের গৌরবময় স্মৃতিধন্য পরিবারের সন্তান সাহেলা আবেদীন এর বড় পরিচয় তিনি সফল উদ্যোক্তা, দক্ষ সংগঠক, ডায়নামিক নেত্রী। তিনি চট্টগ্রাম উইমেন চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির পরিচালক।

সাহেলা আবেদীন

পছন্দের আরো পোস্ট