ড্যাফোডিল টেকনিক্যাল ইন্সটিটিউটে ল্যাপটপ বিতরণ

নিজস্ব প্রতিবেদক।

তথ্য প্রযুক্তির ক্রমবিকাশমান ধারার সাথে প্রতিটি শিক্ষার্থীকে যুগোপযোগী করে তুলতে এবং প্রতিযোগীতা মূলক চাকরি বাজারে দক্ষতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে গতকাল(১৮ জুন ২০২২) শনিবার রাজধানীর ধানমন্ডিতে ড্যাফোডিল এডুকেশন নেটওয়ার্কের ৭১ মিলনায়তনে ড্যাফোডিল টেকনিক্যাল ইন্সিটিটিউটের শিক্ষার্থীদের মাঝে ল্যাপটপ বিতরণ করা হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাস্টিবোর্ডের চেয়ারম্যান ড. মোঃ সবুর খানের সভাপতিত্বে¡ প্রধান অতিথি হিসাবে শিক্ষার্থীদের মাঝে ল্যাপটপ বিতরণ করেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের কৃষিমন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী ড. মো: আবদুর রাজ্জাক, এমপি।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তরের পরিচালক প্রকৌশলী আক্তারুজ্জামান ও ড্যাফোডিল পরিবারের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা জনাব মো: নুরুজ্জামান। অনুষ্ঠানে আরো কত্তব্য রাখেন ড্যাফোডিল টেকনিক্যাল ইন্সিটিটিউটের নির্বাহী পরিচালক ও অধ্যক্ষ রথীন্দ্রনাথ দাস, ডেপুটি একাডেমিক ডিরেক্টও মোডাজ্জেম হোসেন রুবেল ও শিক্ষাথী শান্ত কুমার দাস। আনুষ্ঠানিকভাবে মন্ত্রী ১০ জন শিক্ষার্থীর হাতে বিনামূল্যেও ল্যাপটপ তুলে দেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে কৃষিমন্ত্রী ড. মো: আবদুর রাজ্জাক, এমপি বলেন, প্রধান অতিথির বক্তব্যে কৃষিমন্ত্রী ড. মো: আবদুর রাজ্জাক, এমপি বলেন, দক্ষ ও যোগ্য যুবসমাজ গড়তে শিক্ষার পাশাপাশি তথ্যপ্রযুক্তি জ্ঞান ও ব্যবহার খুবই গুরুত্বপূর্ণ। দক্ষতা উন্নয়নের মাধ্যমে দেশে ও বিদেশে যুবসমাজের জন্য কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করা বর্তমান সরকারের অন্যতম অগ্রাধিকার। দক্ষতা উন্নয়নের মাধ্যমে যুবসমাজের কর্মসংস্থান সৃষ্টি, দেশের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি অর্জন এবং বৈশ্বিক চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করা সহজতর হবে।

সরকারের রূপকল্প ২০২১ বাস্তবায়ন, ২০৩০ সালের মধ্যে টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট অর্জন, ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত দেশে পরিণত হওয়া এবং ব-দ্বীপ পরিকল্পনা-২১০০ বাস্তবায়নের লক্ষ্যে দক্ষ জনবল গড়ে তোলা একান্ত জরুরি।

তিনি বলেন, আমরা চতুর্থ শিল্পবিপ্লবের যুগে প্রবেশ করেছি। রোবট, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার ব্যবহার ক্রমশঃ বেড়েই চলেছে। আমাদের তরুনদেরও এসব বিষয়ে দক্ষ করে তুলতে হবে। সরকারের মূল লক্ষ্য হলো আমাদের নতুন প্রজন্মকে ভবিষ্যৎ বাংলাদেশের নির্মাতা হিসেবে গড়ে তোলা। যার লক্ষ্য হবে প্রযুক্তি-নির্ভর, মূল্যবোধে বলীয়ান ও দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ পরিপূর্ণ মানুষ তৈরিতে, যাঁরা আগামীদিনের বাংলাদেশের নেতৃত্ব দিতে সক্ষম হবেন এবং ডিজিটাল বাংলাদেশ নির্মাণে অবদান রাখবেন।

Post MIddle

শিক্ষার্থীদের হাতে ল্যাপটপ তুলে দিয়ে কৃষিমন্ত্রী ড. আবদুর রাজ্জাক বলেন, ল্যাপটপ শুধু গান শোনা বা মুভি দেখার যন্ত্র নয়; বরং এটি এমন একটি যন্ত্র যার মাধ্যমে সারা পৃথিবীর জ্ঞান বিজ্ঞানের সঙ্গে যুক্ত হওয়া যায়। তিনি শিক্ষার্থীদের এই ল্যাপটপের মাধ্যমে নিজেকে ভবিষ্যৎ কর্মক্ষেত্রের উপযোগী করে গড়ে তোলার আহ্বান জানান।

সভাপতির বক্তব্যে ড. মো. সবুর খান বলেন, বেকারমুক্ত দেশ গড়া ড্যাফোডিল পরিবারের একটি অন্যতম চ্যালেঞ্জ। সেই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলার একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ হচ্ছে শিক্ষার্থীদের হাতে বিনামূল্যে ল্যাপটপ তুলে দেওয়া। ড্যাফোডিল পরিবার বিশ্বাস করে, এই ল্যাপটপের মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা নিজেদেরকে কর্মজীবনের জন্য দক্ষরূপে গড়ে তুলতে পারবে।

দেশ বিদেশের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ও আন্তর্জাতিক সংস্থায় ড্যাফোডিলের শিক্ষার্থীরা সুনামের সঙ্গে কাজ করছে উল্লেখ করে ড্যাফোডিল চেয়ারম্যান আরো বলেন, আমাদের প্রতিষ্ঠানে ভর্তি হওয়ার পর থেকেই শিক্ষার্থীরা পড়াশোনার পাশাপাশি প্রযুক্তিতে দক্ষ হয়ে ওঠার সুযোগ পায়।

এছাড়াও তাদেরকে এপ্লয়াবিলিটি ৩৬০ ডিগ্রি, আর্ট অব লিভিংসহ বিভিন্ন কোর্স সম্পন্ন করতে হয়, যার মাধ্যমে প্রতিটি শিক্ষার্থী গ্রাজুয়েট হওয়ার পাশাপাশি দক্ষ মানবসম্পদে পরিণত হয়। এজন্য ড্যাফোডিলের শিক্ষার্থীরা পাশ করার পর বেকার থাকে না বলে মন্তব্য করেন ড. মো. সবুর খান। এসময় তিনি ল্যাপটপটিকে নিজের ও রাষ্ট্রের উন্নয়নমূলক কাজে ব্যবহার করার জন্য শিক্ষার্থীদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে

বলেন, ড্যাফোডিল পরিবার চায় তোমরা এই ল্যাপটপের সঠিক ও কার্যকর ব্যবহারের মাধ্যমে নিজেদেরকে আধুনিক পৃথিবীর উপযোগী হিসেবে গড়ে তোলো।

শিক্ষার্থীদেরকে উদ্যোক্তা হওয়ার আহ্বান জানিয়ে ড. মোঃ সবুর খান বলেন, আমাদের দেশে প্রচুর উদ্যোক্তা প্রয়োজন। তাই তোমরা উদ্যোক্তা হওয়ার চেষ্টা করো। যদি উদ্যোক্তা হতে গিয়ে ব্যার্থ হও, তবু তুমি কর্মক্ষেত্রে অন্যদের চেয়ে ভালো করবে। কারণ অন্যদের চেয়ে তোমার অভিজ্ঞতার পাল্লা হবে ভারী।

পছন্দের আরো পোস্ট