৪৫ বছরে উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি যে বিদ্যালয়

মেহেদী হাসান লিপন, মোরেলগঞ্জ ।

বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জ উপজেলার জিউধরা সেরজন স্মৃতি মাধ্যমিক বিদ্যালয়টি দীর্ঘ ৪৫ বছরের দৃশ্যমান কোন উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি। ভৌত অবকাঠামো ও আসবাবপত্র সমস্যা, বিজ্ঞানাগার বিধ্বস্ত হয়ে গেছে। পাশাপাশি শিক্ষার মানোন্নয়নে পর্যাপ্ত সুযোগ সুবিধা না থাকায় শিক্ষা কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে।

ঐতিহ্যবাহী এ প্রতিষ্ঠানটি ১৯৭৫ সালে প্রতিষ্ঠিত। বর্তমানে ৫ শতাধিক শিক্ষার্থী এ বিদ্যালয়ে অধ্যায়ন করছে। নিশানবাড়িয়া ও জিউধরা ইউনিয়ন সহ মোংলা উপজেলার সুন্দরবন ইউনিয়নের শিক্ষার্থী রয়েছে এ প্রতিষ্ঠানে।

উপজেলার আন্তঃবিদ্যালয় শীত ও গ্রীষ্মকালীন ক্রীড়ার ২২ টি জোনের একটি জোন হিসেবে এ বিদ্যালয়ের মাঠটি ব্যবহৃত হচ্ছে। ২০১৯ সালে ১০৯ জন শিক্ষার্থী এস্এসসি পরীক্ষায় অংশ গ্রহন করে। পাশের হার প্রায় শতভাগ। চলতি বছরে এসএসসি পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ৮৪ জন। ছাত্র-ছাত্রীদের টিনের ছাপড়া দেয়া ক্লাশ রুমে ঠাসাঠাসি করে ক্লাশ করতে হয়। বাউন্ডারী ওয়াল নেই। নামমাত্র শৌচাগার। নেই আইসিটি রুম। বিজ্ঞানাগার বিধ্বস্ত হয়েছে অনেক আগেই।

সিডর,আইলা,আম্পান ও বুলবুলে ব্যাপকভাবে ক্ষতি হলে সরকারী তেমন কোন সহযোগীতা মেলেনি। শিক্ষার্থীদের চলাচলের জন্য দুই ইউনিয়নের ৫ কিমি. রাস্তা এখনো কাঁচা।

বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মাহাতাব হোসেন মিনা বলেন, বর্তমান সরকারের আমলে উপজেলা অধিকাংশ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ভৌত অবকাঠামোগত ব্যাপক উন্নয়ন হলেও ঐতিহ্যবাহী এ বিদ্যালয়টি কোন উন্নয়ন হয়নি।

বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সদস্য মো. ইয়াকুব মৃধা ও ইউপি সদস্য হাকিম মৃধা জানান, ১৯৪৫ সালে বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হলেও দৃশ্যমান কোন উন্নয়ন হয়নি। বিদ্যালয়ের সার্বিক উন্নয়নে তিনি প্রধানমন্ত্রীর আশু সুদৃষ্টি কামনা করেন।

পছন্দের আরো পোস্ট