রাবিতে শেখ রাসেলের জন্মদিবস উদযাপন

রাবি প্রতিনিধি।

আজ (১৮ অক্টোবর) বঙ্গবন্ধুর কনিষ্ঠ পুত্র শেখ রাসেলের ৫৭তম জন্মদিবস। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শেখ রাসেল মডেল স্কুলে স্কুলের শিক্ষক ও আমন্ত্রিত অতিথিদের অংশগ্রহণে স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে সীমিত পরিসরে আলোচনা ও কেক কাটার মধ্য দিয়ে দিনটি উদযাপন করা হয়। কর্মসূচির শুরুতে শেখ রাসেলের প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করা হয়।

স্কুল প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত এই আয়োজনে প্রধান অতিথি ছিলেন উপাচার্য প্রফেসর এম আব্দুস সোবহান। তিনি তাঁর বক্তৃতায় বলেন, শেখ রাসেলকে হত্যার সময় সে ছিল ১১ বছরের শিশু। প্রত্যেক শিশুই অমিত সম্ভাবনার অনিঃশেষ উৎস। আজ শেখ রাসেল বেঁচে থাকলে সে দেশ ও জাতির অন্যতম কৃতী সন্তান হতে পারতো, হতে পারতো বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার অন্যতম কারিগর। তার নির্মম হত্যাকা- জাতির জন্য এক অপূরণীয় ক্ষতি। উপাচার্য প্রসঙ্গক্রমে আরো বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আমাদের মধ্যে যে চেতনার উন্মেষ ঘটিয়েছিলেন তাকে ছড়িয়ে দিতে হবে প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে। তবেই আমরা জাতির জনকের প্রতি যোগ্য সম্মান দেখাতে পারবো।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপ-উপাচার্য প্রফেসর আনন্দ কুমার সাহা, উপ-উপাচার্য প্রফেসর চৌধুরী মো. জাকারিয়া ও স্কুল পরিচালনা পরিষদের সভাপতি শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের পরিচালক প্রফেসর গোলাম কবির। স্কুলের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ লিসাইয়া মেহ্জবিনের সভাপতিত্বে এই অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে রেজিস্ট্রার প্রফেসর এম এ বারি, প্রক্টর ও ভারপ্রাপ্ত ছাত্র-উপদেষ্টা প্রফেসর মো. লুৎফর রহমান, জনসংযোগ দপ্তরের প্রশাসক অধ্যাপক ড. মো. আজিজুর রহমান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশনের মধ্য দিয়ে এই আয়োজন শেষ হয়।

অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনা করেন স্কুলের শিক্ষক দেবশ্রী মন্ডল ও শাম্মী আকতার।

পরবর্তীতে, বাদ যোহর বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদে শেখ রাসেলের জন্মদিন উপলক্ষে আয়োজিত এক দোয়া-মাহফিল অনুষ্ঠানে যোগ দেন উপাচার্য। ক্যাম্পাসের কয়েকটি সংগঠনও নিজস্ব কর্মসূচির মাধ্যমে দিনটি উদযাপন করে বলে জানা যায়।

পছন্দের আরো পোস্ট