আরব দেশগুলোতে পড়াশুনার যত সুযোগ

সায়ফুল হক সিরাজী।

আরবি মাধ্যম বা মাদ্রাসা শিক্ষার্থীরা উচ্চতর পড়াশোনার জন্য ভর্তি হচ্ছেন আরব দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে। এ ছাড়া বিজ্ঞান, তথ্যপ্রযুক্তি এবং ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে ইংরেজি ভাষায় পড়াশোনার সুযোগ থাকায় অনেক শিক্ষার্থীরই গন্তব্য আরব দেশ। পছন্দের তালিকায় আছে মিসর, সৌদি আরব ও আরব আমিরাত। ভৌগোলিক সীমারেখায় মিসর আফ্রিকার দেশ হলেও আরবি ভাষাভাষী এ দেশের আল-আজহার বিশ্ববিদ্যালয়ের খ্যাতি বিশ্বজুড়ে।

আরবির পাশাপাশি ইংরেজি
সৌদি আরব, মিসর ও আরব আমিরাতের বেশির ভাগ বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনার ভাষা আরবি। তবে কিছু প্রতিষ্ঠানে ইংরেজি ভাষায়ও পড়াশোনা করা যায়। ২০০৯ সালে সৌদি সরকার বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রপ্রধানদের উপস্থিতিতে উদ্বোধন করেন কিং আবদুল্লাহ্ ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি (কেএইউএসটি)। এ প্রতিষ্ঠানটিকে আরবে তথ্যপ্রযুক্তি শিক্ষার ক্ষেত্রে মাইলফলক মনে করা হয়। গ্র্যাজুয়েট এবং পিএইচডি পর্যায়ে ইংরেজি মাধ্যমে বিদেশি শিক্ষার্থীরা পড়াশোনার সুযোগ পাচ্ছেন এখানে।

আরব আমিরাতের দুবাইয়ে মার্কিন ও ব্রিটিশ বিশ্ববিদ্যালয়ের আদলে পরিচালিত হচ্ছে বেশির ভাগ বিশ্ববিদ্যালয়। আবার যুক্তরাজ্যের কিছু বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসও খোলা হয়েছে দেশটিতে। সৌদি আরব এবং আরব আমিরাতে ভর্তির সুযোগ সাধারণত জানুয়ারি এবং সেপ্টেম্বরে। আবেদনের দিনক্ষণ জানতে পারবেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে।

ভর্তি নিশ্চিত হলেই ভিসা
শিক্ষার্থীকে ভর্তির আগে বিশ্ববিদ্যালয় বরাবর প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ আবেদন করতে হয়। একাডেমিক ফল ভালো হলে ভর্তি প্রক্রিয়ায় জটিলতা থাকে না। কর্তৃপক্ষ শিক্ষার্থীকে যোগ্য বিবেচনা করে ভর্তির অনুমতিসংবলিত পত্র পাঠানোর পর ভিসার আবেদন করতে হয়। এর জন্য যোগাযোগ করতে হবে ঢাকায় অবস্থিত সংশ্লিষ্ট দেশের দূতাবাসে।

সৌদি আরব দূতাবাসের ঠিকানা : বাড়ি-৫ (এনই) এল, রোড-৮৩, গুলশান-২, ঢাকা।
আরব আমিরাত দূতাবাসের ঠিকানা : বাড়ি-৪১, রোড-১১৩, গুলশান, ঢাকা।
মিসর দূতাবাসের ঠিকানা : বাড়ি-এনই (এন) ৯, রোড-৯০, গুলশান, ঢাকা।

স্কলারশিপ দিচ্ছে অনেক প্রতিষ্ঠান
এসব দেশের সরকার প্রতিবছর স্কলারশিপ দিচ্ছে। মিসর সরকার সাধারণত বছরের মাঝামাঝি বৃত্তির ঘোষণা দেয়। বৃত্তিসংক্রান্ত তথ্য শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে (www.moedu.gov.bd) ছাড়াও সংশ্লিষ্ট দেশের দূতাবাসেও জানা যাবে।

অনেক বিশ্ববিদ্যালয়ে টিউশন ফি নেই
দুবাইয়ের বিশ্ববিদ্যালয়ে ব্যাচেলর পর্যায়ের শিক্ষার্থীদের প্রতি সেশনে গুনতে হয় বিষয়ভেদে প্রায় এক থেকে তিন লাখ টাকা। তবে সৌদি আরব ও মিসরের অনেক বিশ্ববিদ্যালয়ে ধর্মীয় বিষয়ে পড়াশোনা করতে কোনো টিউশন ফি দিতে হয় না। প্রতি মাসে থাকা-খাওয়া বাবদ ১০ থেকে ১৫ হাজার টাকা খরচ হয়। খণ্ডকালীন কাজ করে বাড়তি রোজগারের সুযোগ নেই এসব দেশে।

পড়তে পারেন যেসব বিশ্ববিদ্যালয়ে
কিং আবদুল্লাহ্ ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি, সৌদি আরব (www.kaust.edu.sa)
ইসলামিক ইউনিভার্সিটি অব মদিনা, সৌদি আরব (www.iu.edu.sa)।
কিং ফয়সাল ইউনিভার্সিটি, সৌদি আরব (www.kfu.edu.sa)।
আমেরিকান ইউনিভার্সিটি ইন দুবাই, আরব আমিরাত (www.aud.edu)।
ব্রিটিশ ইউনিভার্সিটি ইন দুবাই, আরব আমিরাত (www.buid.ac.ae))।
ইউনিভার্সিটি অব দুবাই, আরব আমিরাত (www.ud.ac.ae)।
আল-আজহার ইউনিভার্সিটি, মিসর (www.azhar.edu.eg)।
আলেকজান্দ্রিয়া ইউনিভার্সিটি, মিসর (www.alex.edu.eg)।

পছন্দের আরো পোস্ট