বশেমুরবিপ্রবিতে নতুন উপাচার্য নিয়োগ

ফয়সাল হাবিব সানি, বশেমুরবিপ্রবি প্রতিনিধি।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বশেমুরবিপ্রবি) নতুন উপাচার্য হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের অধ্যাপক (অবঃ) ড. এ, কিউ, এম মাহবুব৷

আজ বুধার (০২ সেপ্টেম্বর) মহামান্য রাষ্ট্রপতির নির্দেশক্রমে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের যুগ্মসচিব সৈয়দ আলী রেজা স্বাক্ষরিত একটি বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়। সেই বিজ্ঞপ্তিতে, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ বিভাগ তাকে নিয়োগ প্রদান করে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে।

ওই প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয় যে, মহামান্য রাষ্ট্রপতি ও চ্যান্সেলর- এর অনুমোদনক্রমে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় আইন, ২০০১ এর ধারা ১০ (১) অনুযায়ী ঢাকা বিশ্ববিদ্যায়ের ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের অধ্যাপক (অবসরপ্রাপ্ত) ড. এ, কিউ, এম মাহবুবকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, গোপালগঞ্জ- এর ভাইস চ্যান্সেলর পদে নিম্নোক্ত শর্তে নিয়োগ করা হলো:
(১) এ নিয়োগের মেয়াদ ৪ (চার) বছর হবে;
(২) ভাইস চ্যান্সেলর হিসেবে তিনি অবসর অব্যবহিতপূর্ব পদে প্রাপ্ত বেতনভাতার সমপরিমাণ বেতনভাতাদি পাবেন;
(৩) তিনি ভাইস চ্যান্সেলর পদের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট অন্যান্য সুবিধা ভোগ করবেন;
(৪) তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে সার্বক্ষণিক অবস্থান করবেন;
(৫) মহামান্য রাষ্ট্রপতি ও চ্যান্সেলর প্রয়োজন মনে করলে নির্ধারিত সময়কাল শেষ হওয়ার পূর্বেই এ নিয়োগ বাতিল করতে পারবেন।

প্রসঙ্গত, গত বছরের ৩০ সেপ্টেম্বর শিক্ষার্থীদর টানা ১২ দিনের আন্দোলনের মুখে পদত্যাগ করতে বাধ্য হন বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য প্রফেসর ড. খোন্দকার নাসিরউদ্দিন। পরবর্তীতে ৭ অক্টোবর থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের ইলেকট্রনিকস অ্যান্ড টেলিকমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং (ইটিই) বিভাগের অধ্যাপক ড. মোঃ শাহজাহান ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন। উল্লেখ্য, এ ঘটনা অতিবাহতি হবার দীর্ঘ ১১ মাস পর স্থায়ী উপাচার্য পেলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।

বিশ্ববিদ্যালয়ে নতুন উপাচার্য প্রাপ্তিতে বিভিন্ন শিক্ষার্থী তাদের অভিমত ব্যক্ত করতে গিয়ে লেখাপড়া টোয়েন্টিফোর ডট নেটকে বলেন, আমরা একজন শিক্ষার্থীবান্ধব উপাচাপর্য চায়, যিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের সার্বিক উন্নয়নকল্পসহ শিক্ষার্থীদের বিপদে-আপদেও সর্বক্ষণ পাশে থাকবেন এবং সততা ও ন্যায়-নীতির ক্ষেত্রে হবে অবিচল, অটল ও দৃঢ়প্রতিজ্ঞ। এছাড়াও, সর্বোপরি হবে দুর্নীতিমুক্ত, উন্নত মানসিকতাসম্পন্ন, চরিত্রবান ও কর্তব্যপরায়ণ। আর আমরা শ্রদ্ধেয় নতুন উপাচার্যের নিকট এমনটাই আশাবাদ ব্যক্ত করছি।’

পছন্দের আরো পোস্ট