ডিআইইউ আইকিউএসি’র অনলাইন পর্যালোচনা

নিজস্ব প্রতিবেদক।

ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির আইকিউএসির আয়োজনে ‘ডিআইইউ ব্লেনডেড লার্নিং সেন্টার (বিএলসি)’ এর উপর এক অনলাইন পর্যালোচনা সভা ২২ জুলাই (মঙ্গলবার) অনুষ্ঠিত হয়েছে। অনুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ এক্রিডিটেশন কাউন্সিলের সদস্য অধ্যাপক ড. সঞ্জয় কুমার অধিকারী ও অধ্যাপক ড. এস এম কবির।

ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য অধ্যাপক ড. এস এম মাহবুব উল হক মজুমদারের সভাপতিত্বে সভাটি পরিচালনা করেন আইকিউএসির পরিচালক অধ্যাপক ড. এ কে এম ফজলুল হক এবং সভার সমাপনী বক্তব্য প্রদান করেন রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ড. প্রকৌশলী এ কে এম ফজলুল হক।

এছাড়া অন্যান্যের মধ্যে আরও বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার মমিনুল হক মজুমদার, আইকিউএসির অতিরিক্ত পরিচালক ড. জসিম উদ্দিন, এইচআরডিআইয়ের পরিচালক এজাজ-উর-রহমান, বিশ্ববিদ্যালয়ের উর্ধ্বতন সহকারী পরিচালক খোন্দকার শাহ আল মামুন প্রমুখ। সভায় বিভিন্ন অনুষদের ডীন, বিভাগীয় প্রধানগনসহ বিশ কিছু শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করেন।

বাংলাদেশ এক্রিডিটেশন কাউন্সিলের সদস্য অধ্যাপক ড. সঞ্জয় কুমার অধিকারী বলেন, করোনাকালের এই সময়ে ‘ব্লেনডেড লার্নিং সেন্টার’ ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির অনলাইন শিক্ষাক্ষেত্রে যুগান্তকারী এক উদ্ভাবন। তাদের উদ্ভাবিত ব্লেনডেড লার্নিং সেন্টার অত্যন্ত কার্যকরী গুনগত অনলাইন শিক্ষাব্যবস্থা। ড. সঞ্জয় কুমার অধিকারী আরও বলেন, ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয়ের বিএলসি প্ল্যাটফর্ম দেখে মনে হলো এখানে টিচিং লার্নিয়ের সব ধরনের উপকরণই রয়েছে।

অনলাইনে ক্লাস পরিচালনা করার জন্য যে ধরনের দক্ষতা প্রয়োজন তার সবকিছুই আছে ড্যাফোডিলের। আগে থেকেই ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয় প্রযুক্তি ব্যবহারের ক্ষেত্রে পথিকৃৎ অবস্থানে রয়েছে, বর্তমান করোনার পরিস্থিতিতে তারা তাদের সক্ষমতা আরো একবার প্রমাণ করল বলে মন্তব্য করেন তিনি।এই ব্যবস্থার আরো উন্নয়ণ ঘটিয়ে আগামী দিনগুলিতে ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয় অনলাইন শিক্ষায় নেতৃত্ব দিবে বলে আশা প্রকাশ করেন এবং এই ব্যবস্থা অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর অনুসরণ করা উচিত বলে মন্তব্য করেন তিনি।

এ সময় ড. এস এম কবির ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয়কে ধন্যবাদ জানান এমন একটি প্ল্যাটফর্ম তৈরি করার জন্য এবং এর মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা উপকৃত হবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

সভাপতির বক্তব্যে অধ্যাপক ড. এস এম মাহবুব উল হক মজুমদার বলেন, ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয় ২০১৫ সাল থেকে অনলাইন কোর্স পরিচালনা করে আসছে। সুতরাং অনলাইন ক্লাসের সঙ্গে আমাদের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা আগে থেকেই অভ্যস্ত। অনলাইন শিক্ষাকে আরও কার্যকর এবং যুগপোযোগী করার জন্য ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয় বিএলসি প্ল্যাটফর্ম তৈরি করেছে। এছাড়া শিক্ষার্থীদেরকে আধুনিক প্রযুক্তিতে দক্ষ করে গড়ে তুলতে ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয় ‘একজন শিক্ষার্থী একটি ল্যাপটপ’ কর্মসূচিসহ বিভিন্ন ধরনের কর্মসূচি পরিচালনা করে আসছে।

অনুষ্ঠানে বিএলসির উপর সংক্ষিপ্ত তথ্যচিত্র উপস্থাপন করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উর্ধ্বতন সহকারী পরিচালক খোন্দকার শাহ আল মামুন এবং একটি বিএলসি প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতিতে সরাসরি ক্লাস পরিচালনা করেন বাণিজ্য অনুষদের সিনিয়র লেকচারার এজাজ-উর-রহমান।

পছন্দের আরো পোস্ট