খুবিতে ইন্সপিরেশন এন্ড বন্ডিং উইথ কেমিস্ট্রি শীর্ষক অনুষ্ঠান

খুবি প্রতিনিধি।

গত (১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০) খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য জগদীশচন্দ্র বসু একাডেমিক ভবনের সাংবাদিক লিয়াকত আলী মিলনায়তনে রসায়ন ডিসিপ্লিনের উদ্যোগে ‘ইন্সপিরেশন এন্ড বন্ডিং উইথ কেমিস্ট্রি’ (রসায়নের সাথে অনুপ্রেরণা এবং বন্ধন) শীর্ষক এক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

রসায়ন ডিসিপ্লিন প্রধান প্রফেসর ড. মোসাম্মাৎ হোসনে আরার সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মোহাম্মদ ফায়েক উজ্জামান।

তিনি বলেন শিক্ষার্থীদের মধ্যে যে অন্তর্নিহিত শক্তি ও অসীম সম্ভাবনা রয়েছে তা জাগিয়ে তোলাই শিক্ষকের সার্থকতা। শিক্ষক যদি উপযুক্ত ছাত্র তৈরি করতে পারে তা হলে সেখানেই তাঁর সাফল্য। তিনি শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে বলেন লেখা-পড়ার মধ্যে বা অন্য যে কোনো কাজের মধ্যে যদি আনন্দ খুঁজে পাওয়া যায় তা হলে সে কাজে নিশ্চিতভাবে সাফল্য অর্জিত হয়। তিনি রসায়নের মতো একটি মৌলিক ও জীবনের সাথে সম্পর্কযুক্ত বিষয়ে শিক্ষা-গবেষণার মাধ্যমে বহুমুখী কর্মক্ষেত্রে সাফল্যের সাথে কাজ করার সোপান গড়ে তোলার আহবান জানান।

তিনি শিক্ষার্থীদের প্রতি আরও বলেন মনে রাখতে হবে বিশ্ববিদ্যালয় হচ্ছে জ্ঞানার্জনের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠ। তাই এখান থেকেই জীবন গড়তে হবে। তবে তাদেরকে অবশ্যই নীতি-নৈতিকতা ও সামাজিক মূল্যবোধ লালন করতে হবে এবং এই মানসিকতা থাকতে হবে যেনো সমাজ, রাষ্ট্র তার দ্বারা উপকৃত হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ে অবাধ বাক স্বাধীনতা, সাংস্কৃতিক চর্চা, সহশিক্ষামূলক কার্যক্রমের সুযোগ আছে। কিন্তু তাই বলে কোনো শিক্ষার্থী বিপথগামী হোক বা তাদের ভবিষ্যৎ নষ্ট হোক তা যেমন আমরা চাই না তেমনি কোনো অভিভাবকও প্রত্যাশা করেন না। এটা ঠিক যে, কোনো সন্তান যদি তার পিতা-মাতাকে বা কোনো শিক্ষার্থী যদি কোনো শিক্ষককে অপমানিত করে, কষ্ট দেয় তা হলে সেই সন্তান বা শিক্ষার্থী জীবনে উপরে উঠতে পারে না, সাফল্য অর্জন করতে পারে না। অশান্তি তাকে পিছু ছাড়ে না। এটাই প্রকৃতির নিয়ম।

এ সময় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বিজ্ঞান, প্রকৌশল ও প্রযুক্তিবিদ্যা স্কুলের ডিন প্রফেসর ড. উত্তম কুমার মজুমদার, সহকারী ছাত্রবিষয়ক পরিচালক তালুকদার রাসেল মাহমুদ। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ডিসিপ্লিনের সিনিয়র শিক্ষক প্রফেসর ড. মোঃ রেজাউল হক। অনুষ্ঠানে রসায়নের গ্রাজুয়েটদের বিভিন্ন ক্ষেত্রে পেশাগত সম্ভাবনার দিক তুলে ধরে পাওয়ার পয়েন্টে উপস্থাপনা করেন ডিসিপ্লিনের সহকারী অধ্যাপক ড. জামিল আহমেদ।

এ সময় রসায়ন ডিসিপ্লিনে বর্ষ ভিত্তিক সর্বোচ্চ জিপিএ অর্জনকারী ৫জন শিক্ষার্থীকে সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান করা হয়। সম্মাননা ক্রেস্ট প্রাপ্তরা হলেন ১ম বর্ষের সৌরভ কুমার দাস, ২য় বর্ষের ইভানা সুলতানা, ৩য় বর্ষের মোঃ আরিফুল ইসলাম, ৪র্থ বর্ষের তিশা রাণী সাহা এবং ১৬ ব্যাচের ৪ বছরের ফলাফল মূল্যায়নভিত্তিক সর্বোচ্চ সিজিপিএ অর্জনকারী শামসুন্নাহার মুন।

এ ছাড়া ডিসিপ্লিনের সহযোগী অধ্যাপক কায়কোবাদ মোহাম্মদ রেজাউল করিম পিএইচডি প্রোগ্রাম সম্পন্ন করে ডিসিপ্লিনে যোগদান করায় তাকে ফুল দিয়ে অভিনন্দন জানানো হয়। অনুষ্ঠানে সংশ্লিষ্ট ডিসিপ্লিনের শিক্ষক ও শিক্ষার্থী এবং পুরষ্কৃত শিক্ষার্থীদের অভিভাবকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

পছন্দের আরো পোস্ট