বিশ্ব শিক্ষক দিবস উপলক্ষ্যে স্বাশিপের আলোচনা সভা

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

গত (৫ অক্টোবর) শনিবার বিশ্ব শিক্ষক দিবস উপলক্ষ্যে স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদ স্বাশিপ কর্তৃক ‘বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের শিক্ষা ব্যবস্থা ও আমাদের করণীয়’ শীর্ষক আলোচনা সভা ব্যানবেইস মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়।

স্বাশিপ সভাপতি প্রফেসর ড. আব্দুল মান্নান চৌধুরী’র সভাপতিত্বে উক্ত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ন-সাধারণ সম্পাদক জনাব মোঃ মাহবুব উল আলম হানিফ এমপি। বিশেষ অতিথি হিসেবে বাংলাদেশ শিক্ষা তথ্য ও পরিসংখ্যান ব্যুরো মহাপরিচালক জনাব মোঃ ফসিউল্লাহ, বাংলাদেশ ইউনেস্কো জাতীয় কমিশনের ডেপুটি সেক্রেটারী জেনারেল জনাব মোঃ মনজুর হোসেন উপস্থিত ছিলেন।

সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক ও জাতীয় শিক্ষক নেতা অধ্যক্ষ মোঃ শাহজাহান আলম সাজু কর্তৃক উপস্থাপিত প্রবন্ধের উপর আলোচনায় অংশ নেন প্রফেসর মোঃ সাজিদুল ইসলাম, অধ্যক্ষ শরীফ আহমেদ সাদী, মোঃ সাইদুর রহমান পান্না, অধ্যক্ষ মোনতাজ উদ্দিন মর্তুজা, অধ্যক্ষ তেলোয়াত হোসেন, মোঃ মজিবুর রহমান বাবুল, অধ্যক্ষ ড. আবু বকর সিদ্দিক, আকলিমা খাতুন, অধ্যক্ষ নজরুল ইসলাম প্রমুখ শিক্ষক নেতৃবৃন্দ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মোঃ মাহবুব উল আলম হানিফ এমপি বলেন, শিক্ষকরা শুধু মানুষ গড়ার কারিগর নয়, জাতি নির্মাণের অভিবাবকও বটে। তারা মানুষের শ্রদ্ধার পাত্র। একজন শিক্ষার্থী তার শিক্ষককেই আদর্শ হিসেবে গ্রহন করে। কাজেই শিক্ষকরা মেধা-জ্ঞানসম্পন্ন ও নীতি আদর্শের প্রতীক হলে জাতির ভবিষ্যৎ ভাল হতে বাধ্য।

তিনি আরো বলেন, পারিবারিক শিক্ষা ও প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা উভয়ের সম্মিলনে আদর্শ মানুষ সৃষ্টি হয়। বঙ্গবন্ধু পরিবারে দুটি গুনাবলিই ছিল বলে তাঁর সূযোগ্য কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা আজ শুধু বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী নন একজন সৎ বিশ্বনেতাও বটে। একিধারা ও অনুশাসনে তাঁর ছেয়ে সজীব ওয়াজেদ জয়, সায়মা ওয়াজেদ পুতুল আধুনিক যুব সমাজের গর্ব, দেশের অহংকার।

পক্ষান্তরে জিয়া-খালেদা পরিবারের দিকে তাকান তাহলে প্রার্থক্যটা স্পষ্ট হয়ে যায়। একেই বলে সুশিক্ষা ও নীতি আদর্শ । অতীতের যে কোন অবস্থা থেকে বর্তমানে দেশের শিক্ষক সমাজের আর্থিক ও সামাজিক অবস্থান ভাল, এসব জননেত্রী শিক্ষা বান্ধব প্রধানমন্ত্রীর অবদান। সরকার বিশেষত: প্রধানমন্ত্রী আপনাদের যথেষ্ট সহানুভূতিশীল।

দেশ বর্তমানে উন্নয়নের মহাসড়কে, আপনারা তাকে শক্তি যোগান, জাতির ক্রমোন্নতির ধারায় আপনাদের অবশিষ্ট সমস্যা/দাবী বাস্তবায়িত হবে। শিক্ষা সূযোগ অবারিত হয়েছে। এখন আসুন আমরা শিক্ষার গুনগত মান উন্নয়নে- আত্মনিয়োগ করি। বিশ্ব শিক্ষক দিবসে এটাই হোক আমাদের প্রতিশ্রুতি, প্রত্যাশা।

পছন্দের আরো পোস্ট