অঙ্কুর এ চ্যাম্পিয়ন অল স্টার ড্যাফোডিল

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

এমআইএসটি লিটারেচার অ্যান্ড কালচারাল ক্লাব আয়োজিত আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা ‘অঙ্কুর ২০১৯’ এ দলীয় সংস্কৃতি বিভাগে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থীদের দল ‘অল স্টার ড্যাফোডিল’।

গত শনিবার (২১ সেপ্টেম্বর) মিলিটারি ইনস্টিটিউট অব সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি (এমআইএসটি) ক্যাম্পাসে এ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। এতে ১৭টি বিশ্ববিদ্যালয়কে পেছনে ফেলে চ্যাম্পিয়ন শিরোপা অর্জন করে অল স্টার ড্যাফোডিল।

এমআইএসটির যন্ত্রকৌশল অনুষদের ডিন এয়ার কমোডোর মোঃ আব্দুস সালাম, বিপিপি, পিএসসি প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন। এসময় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের ডিন হামিদুজ্জামান খান, তরুণ কথাসাহিত্যিক সাদাত হোসাইন, চলচ্চিত্র পরিচালক হাসিবুর রেজা কল্লোল, কার্টুনিস্ট মোরশেদ মিশু, অভিনেত্রী তমা মির্জা, সঙ্গীত পরিচালক পৃথ্বীরাজ ও চিত্রগ্রাহক রিফাত ইকবাল।

প্রতিযোগিতায় অল স্টার ড্যাফোডিল দল ‘সত্তা’ শিরোনামে দলীয় নাটক পরিবেশন করে। এটি রচনা ও নির্দেশনা দিয়েছেন ইলিয়াস নবী ফয়সাল। এতে দ্বৈতসত্তার একজন মানুষের পরিচয়সংকটের গল্প উঠে আসে এই পরিবেশনার মাধ্যমে। এ গল্প ভীষণ অস্বস্তিকর। বদ্ধ কোনো সমাজে এ গল্প বলা যায় না। কারণ এই সমাজ এই গল্প সহজে মেনে নিতে পারে না কিন্তু গল্পটি বলতেই হবে তাঁকে; ছেলেটিকে কিংবা ছেলের শরীরধারী মেয়েটিকে।

পরিবেশনার শুরুতে বালির নাচ আর আদির গান সবাইকে মুগ্ধ করেছে। বাবু মশায়ের চরিত্রে মুশফিকের সংলাপে দর্শক মজেছে, আর শশীর গানের দরদে মন ভিজিয়েছে পুরো হলের দর্শককে। শেষে ফাহিমের সুরে কেঁদেছে দর্শকমহল।

প্রতি বছর এমআইএসটি লিটারেচার অ্যান্ড কালচারাল ক্লাব প্রতিযোগিতাটি আয়োজন করে থাকে। এ বছর সারা দেশের ৪০ টি বিশ্ববিদ্যালয় ও ২০ টি কলেজ থেকে প্রায় ১২০০ শিক্ষার্থী নাচ, গান, অভিনয়, গল্প পূরণ, কথোপকথনসহ মোট ১১টি সেগমেন্টে অংশ গ্রহণ করেছে।

পছন্দের আরো পোস্ট