রাবিতে শুদ্ধাচার কৌশল ও বার্ষিক কর্মসম্পাদন ব্যবস্থাপনা কর্মশালা

রাবি প্রতিনিধিঃ

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে গতকাল শুক্রবার জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল ও বার্ষিক কর্মসম্পাদনা ব্যবস্থাপনা বিষয়ে এক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ সিনেট ভবনে এই কর্মশালায় প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন (বিমক) সদস্য প্রফেসর এম শাহ্ নওয়াজ আলি।

এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য প্রফেসর আনন্দ কুমার সাহা, উপ-উপাচার্য প্রফেসর চৌধুরী মো. জাকারিয়া ও কোষাধ্যক্ষ প্রফেসর এ কে এম মোস্তাফিজুর রহমান আল-আরিফ। বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর এম আব্দুস সোবহানের সভাপতিত্বে এই কর্মশালায় স্বাগত বক্তৃতা করেন কর্মশালা সমন্বয়কারী ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার প্রফেসর এম এ বারী।

প্রফেসর এম শাহ্ নওয়াজ আলি তাঁর বক্তৃতায় বলেন, কোনো প্রতিষ্ঠান সুষ্ঠুভাবে পরিচালনায় কর্মসম্পাদন পরিকল্পনার মাধ্যমে ঐ প্রতিষ্ঠানের বর্তমান অবস্থা ও ভবিষ্যত পরিকল্পনা সম্পর্কে জানা যায় যা সময়ের চাহিদা সম্পর্কে ধারণা দেয়। তার ভিত্তিতে যে পরিকল্পনা করা হয় তার বাস্তবায়ন টেকসই ও ফলপ্রসু করার জন্য কর্মসম্পাদন পরিকল্পনা বিশেষ গুরুত্ব বহন করে। বর্তমান সরকার দেশের উন্নয়ন ও এর দৈনন্দিন পরিচালনাকে কার্যকর করার জন্য কর্মসম্পাদন পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। তার অংশ হিসেবেই বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের আওতাধীন প্রতিষ্ঠানসমূহেও বার্ষিক কর্মসম্পাদন পরিকল্পনা প্রণয়ন করা হয়েছে।

উপাচার্য প্রফেসর এম আব্দুস সোবহান তাঁর বক্তৃতায় বলেন, যে কোনো কর্মসম্পাদনে সততা ও নিষ্ঠা অপরিহার্য। প্রতিষ্ঠানে শুদ্ধাচারের জন্য ব্যক্তির শুদ্ধাচারণও প্রয়োজন। এর মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানের কার্যনির্বাহে স্বচ্ছতা নিশ্চিত হয়। জাতীয় উন্নয়নকে স্থায়ীত্বশীল ও সফল করতে হলে বৃহত্তর প্রেক্ষাপটে প্রাতিষ্ঠানিক এবং ক্ষুদ্র পরিসরে ব্যক্তির শুদ্ধাচারের বিকল্প নাই। কাজেই আমাদের সকলকে বিষয়টি অনুধাবণ করে শুদ্ধাচারের চর্চায় নিবেদিত হতে হবে।
অর্থনীতি বিভাগের প্রফেসর মো. আব্দুর রশীদ সরকার কর্মশালা উদ্বোধন অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন।

উদ্বোধন অনুষ্ঠানের পর অনুষ্ঠিত হয় কর্মঅধিবেশন। এতে বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি : প্রেক্ষিত রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় শীর্ষক বিষয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সিনিয়র সহকারী সচিব ফজলুর রহমান; ‘জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল’ বিষয়ে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের উপ-সচিব জাকিয়া পারভীন; বার্ষিক কর্মসম্পাদন ব্যবস্থাপনায় নির্বাচনী মেনিফেস্টো, টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা ও অন্যান্য নীতিগত বিষয়ে বিমক’র সিনিয়র সহকারী পরিচালক মো. নজরুল ইসলাম; বার্ষিক কর্মসম্পাদন ব্যবস্থাপনা সফটওয়্যার সম্পর্কে বিমক’র সিনিয়র সহকারী সচিব মো. রবিউল ইসলাম বক্তৃতা ও মাল্টিমিডিয়ায় তথ্য-উপাত্ত উপস্থাপন করেন। তাঁরা কর্মশালায় অংশগ্রহণকারীদের প্রশ্নেরও উত্তর দেন। সরকারের মন্ত্রীপরিষদ বিভাগের সিনিয়র সহকারী সচিব এফ এইচ আলাওল কবীরও সেখানে বক্তৃতা করেন।

দিনব্যাপী এই কর্মশালায় অনুষদ অধিকর্তা, বিভাগীয় সভাপতি, ইনস্টিটিউট পরিচালক, উর্দ্ধতন কর্মকর্তা, বিশিষ্ট শিক্ষক ও অফিস প্রধানগণ অংশ নেন।

পছন্দের আরো পোস্ট