প্রক্সি দিতে শিক্ষার্থীর এক বছরের জেল

বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে (বেরোবি) প্রক্সি দিতে এসে শফিকুল ইসলাম (১৮) নামের এক শিক্ষার্থী আটক হয়েছে। আটককৃত শিক্ষার্থীকে এক বছরের কারাদ- দিয়েছেন ভ্রাম্যমান আদালতের বিজ্ঞ নির্বাহী ম্যাজিস্টেট মেহেদি হাসান। দন্ডপ্রাপ্ত শিক্ষার্থী শরিয়তপুর জেলার ঘোষেরহাট থানার হাটুরিয়া গ্রামের মৃত আব্দুল জলিলের পুত্র।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, রবিবার বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক (সম্মান) ১ম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষা শুরু হয়। পরীক্ষার প্রথম দিনের এ ইউনিটের চতুর্থ শিফটে ফজলে রাব্বী আশিক নামের এক শিক্ষার্থীর প্রবেশপত্র নিয়ে ২ নং একাডেমিক ভবনের চতুর্থ তলার ৪১৫ নং কক্ষে প্রবেশ করে শফিকুল।

পরে ওই কক্ষের দায়িত্বরত শিক্ষক লোক প্রশাসন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক আসাদুজ্জামান মূল আসাদ শফিকুলকে আটক করে প্রক্টরের হাতে তুলে দেন।

পরে প্রক্টর আবু কালাম মো. ফরিদ-উল ইসলাম তাকে ভ্রাম্যমান আদালতে সোপর্দ করলে আদালত তাকে ১ বছরের বিনাশ্রম কারাদন্ড দেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিশ্বদ্যিালয়ের প্রক্টর আবু কালাম মো. ফরিদ-উল ইসলাম বলেন, বদলি পরীক্ষার্থী হিসেবে পরীক্ষা কেন্দ্রে প্রবেশ করায় ওই শিক্ষার্থীকে আটক করা হয়। পরে তাকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ শেষে ভ্রাম্যমান আদালতে সোপর্দ করলে আদালত তাকে এক বছরেরর কারাদন্ড দেন। আদালতের রায়ের পর তাকে রংপুর কারাগারে পাঠিয়েছে পুলিশ।

এদিকে, বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসেই মোট চারটি শিফটে সকাল সাড়ে ৯টা থেকে সাড়ে ১০টা পর্যন্ত প্রথম শিফট, ১১টা থেকে ১২টা দ্বিতীয় শিফট, দুপুর ১টা ৩০মিনিট থেকে ২টা ৩০মিনিট পর্যন্ত তৃতীয় শিফট এবং বিকেল সাড়ে ৩টা থেকে সাড়ে ৪টা পর্যন্ত চতুর্থ শিফটের ভর্তি পরীক্ষার মধ্য দিয়ে ‘এ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা সম্পন্ন হয়। এ বছর ‘এ’ ইউনিটের ১৯৫টি আসনের বিপরীতে ভর্তিচ্ছুর সংখ্যা ছিল ১৮ হাজার ২৭০ জন। অর্থাৎ প্রতি আসনের বিপরীতে ভর্তি লড়াইয়ে অংশ নেন ৯৩ জন।

বরাবরের মতো এবারেও মোবাইল ফোনসহ টেলিযোগাযোগ করা যায় এমন যে কোনো ইলেক্ট্রনিক ডিভাইস নিয়ে পরীক্ষা কেন্দ্রে প্রবেশ ছিল নিষিদ্ধ। কেন্দ্রের প্রবেশপথে মেটাল ডিটেক্টরে তল্লাশি করে পরীক্ষার্থীদের হলে ঢোকানো হয়। অনিয়ম ও জালিয়াতি ঠেকাতে পরীক্ষার সময় বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টরিয়াল বডির পাশাপাশি ভ্রাম্যমাণ আদালত দায়িত্ব পালন করেন।

প্রসঙ্গত, আগামীকাল সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদভুক্ত ‘বি’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। এতে ৩৭৫টি আসনের বিপরীতে আবেদন করেছেন ১৯ হাজার ৮১২ জন ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থী। অর্থাৎ প্রতি আসনে লড়বেন ৫৩ জন।

পছন্দের আরো পোস্ট