ডিজিটাল বাংলাদেশ নির্মাণে বিজ্ঞানের ভূমিকা শীর্ষক সেমিনার

চাঁদপুর স্পুটনিক সায়েন্স ক্লাবের আয়োজনে ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ নির্মাণে বিজ্ঞানের ভূমিকা’ শীর্ষক এক সেমিনার এবং ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মোকসেদুর রহমান সেলিমকে সম্বর্ধনা জ্ঞাপন অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে। সম্প্রতি চাঁদপুরের রসুইঘর সেন্টারে এ সেমিনার ও সম্বর্ধনা অনুষ্ঠিত হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় শিক্ষা ব্যবস্থাপনা একাডেমি’র (নায়েম) ভারপ্রাপ্ত মহাপরিচালক ও স্পুটনিক সায়েন্স ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সাংগঠনিক সম্পাদক অধ্যাপক ড. লোকমান হোসেন। স্পুটনিক সায়েন্স ক্লাবের সভাপতি ড. মো. ঘাসান খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সেমিনারে আরো বক্তব্য রাখেন সানোফি বাংলাদেশ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মুঈন উদ্দিন মজুমদার, চাঁদপুর প্রেস ক্লাবের সভাপতি ইকবাল হোসাইন পাটোয়ারি, স্পুটনিক সায়েন্স ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মোকসেদুর রহমান, উপদেষ্টা প্রকৌশলী দেলোয়ার হোসাইন, ক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির উর্ধ্বতন সহকারী পরিচালক আনোয়ার হাবিব কাজল, সাবেক সভাপতি ও অনুষ্ঠানের আহ্বায়ক জিয়াউর রহমান বেলাল প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মোকসেদুর রহমান সেলিমের উপস্থিতিতে স্পুটনিক সায়েন্স ক্লাবের নবগঠিত কমিটি ঘোষনা করেন প্রধান অতিথি অধ্যাপক ড. লোকমান হোসেন। নবগঠিত কমিটির সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন ফরকাবাদ কলেজের অধ্যক্ষ ড. মোহাম্মদ হাসান খান এবং সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন চাঁদপুর সরকারি কলেজের পদার্থ বিদ্যা বিভাগের সহকারি অধ্যাপক রুপক রায়। অনুষ্ঠানে ক্লাবের সাবেক ও বর্তমান প্রায় ৬০জন সদস্য অংশগ্রহণ করেন।

উল্লেখ্য, ১৯৮০ সালে মোকসেদুর রহমান সেলিমের উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত স্পুটনিক সায়েন্স ক্লাব এ পর্যন্ত ৬বার জাতীয় পুরস্কার অর্জন করেছে এবং ১৩বার জাতীয় বিজ্ঞান মেলায় অংশ্রহণ করেছে। একসময় চাঁদপুরের মেধাবী ও উদ্ভাবনশীল শিক্ষার্থীরা সবাই এই ক্লাবে জড়ো হতেন এবং বিভিন্ন ধরনের বিজ্ঞান প্রকল্প উদ্ভাবন করতেন। তাদের উদ্ভাবিত উল্লেখযোগ্য সংখ্যক প্রকল্প জাতীয় পর্যায়ে সমাদৃত ও স্বীকৃতি লাভ করেছে।

সেমিনারে বক্তারাি ডজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে বিজ্ঞানের ভূমিকা তুলে ধরেন এবং ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ে তোলার লক্ষ্যে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির ব্যবহার ও চর্চা বাড়াতে সবার প্রতি আহ্বান জানান। তারা বলেন, দেশের উন্নয়নের এক উল্লেখযোগ্য নির্দেশক হচ্ছে সরকারের ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ শ্লোগান। ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার রূপকল্প-২০২১ আমাদের জন্য নিঃসন্দেহে এক বিপুল অনুপ্রেরণার নাম। দেশে এখন ১২ কোটির ওপর নিবন্ধিত মোবাইল ফোন ব্যবহারকারী রয়েছে এবং ৪.৩ কোটি ইন্টারনেট ব্যবহারকারী রয়েছে যারা ডিজিটাল বাংলাদেশের সুফল ভোগ করছে। সরকারের মূল লক্ষ্য হচ্ছে মানুষের দোর গোড়ায় সকল সুবিধা পৌঁছে দেয়া। এজন্য বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তির উন্নয়নের কোনো বিকল্প নেই বলে তারা অভিমত ব্যক্ত করেন।

পছন্দের আরো পোস্ট