ইবিতে দিনব্যাপী শাস্ত্রীয় সঙ্গীত কর্মশালা

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার প্রফেসর ড. মোঃ সেলিম তোহা বলেছেন, যে কোন বিষয়ে প্রতিষ্ঠা লাভ করতে হলে প্রশিক্ষণের কোন বিকল্প নেই। বিশেষ করে সংস্কৃতি, ক্রীড়া ও গবেষণার ক্ষেত্রে প্রশিক্ষণ অপরিহার্য। তিনি বলেন, মাননীয় ভাইস চ্যান্সেলরের নেতৃত্বে আমরা দায়িত্ব গ্রহণের পর বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে ঘোষণা দিয়েছিলাম, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় লেখাপড়ার পাশাপাশি সাংস্কৃতিক, ক্রীড়া ও গবেষণাসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে সমান ভাবে এগিয়ে যাবে। আমাদের সেই ঘোষণা বাস্তবায়িত হচ্ছে। আজ একদিকে খেলার মাঠে চলছে আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় ফুটবল ও বাস্কেটবল প্রতিযোগীতা এবং অপরদিকে চলছে সঙ্গীত প্রশিক্ষণ।

তিনি বলেন, আজকের এ প্রশিক্ষণের মধ্যদিয়ে প্রশিক্ষণার্থীরা সঙ্গীত বিষয়ে যে জ্ঞান অর্জন করবে এবং সেই অর্জিত জ্ঞান ভবিষ্যত জীবনে কাজে লাগিয়ে তারা প্রতিষ্ঠিত শিল্পী হবে এই আশারাখি। ট্রেজারার বলেন, বাংলাদেশ এবং পশ্চিমবঙ্গের সংস্কৃতি তেমন কোন আলাদা নয়। তাদের এবং আমাদের জীবন-যাত্রারমান প্রায় সমান। ভারত-বাংলাদেশ বন্ধুপ্রতীম রাষ্ট্র। দু’দেশের এই বন্ধুত্ব আরও অটুট হোক এই প্রত্যাশা করি। সোমবার সকালে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের দেশরত্ব শেখ হাসিনা হলের আয়োজনে, আইন ও শরীয়াহ্ অনুষদের সভাকক্ষে দিনব্যাপী শাস্ত্রীয় সঙ্গীত কর্মশালার উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার প্রফেসর ড. মোঃ সেলিম তোহা এসব কথা বলেন।

দেশরত্ব শেখ হাসিনা হলের প্রভোস্ট প্রফেসর ড. মোঃ মিজানুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত উদ্বোধনী সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন ও শরীয়াহ্ অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. রেবা মন্ডল। রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী শ্রাবন্তী দাসের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত অতিথি ছিলেন ভারতীয় উপমহাদেশের প্রখ্যাত শাস্ত্রীয় সঙ্গীত শিল্পী পন্ডিত শ্যামসুন্দর গোস্বামী এবং প্রখ্যাত তবলা শিল্পী পন্ডিত শুভ্রাংশু চক্রবর্তী । অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর প্রফেসর ড. মোঃ মাহবুবর রহমান। দিনব্যাপী এ কর্মশালায় ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের বির্ভিন্ন বিভাগের সঙ্গীত শিল্পীরা অংশগ্রহণ করেন।

পছন্দের আরো পোস্ট