স্টামফোর্ড ইয়েসের আয়োজনে জাতীয় বারোয়ারী বিতর্ক প্রতিযোগিতা

রাজধানীর স্টামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সিদ্বেশ্বরী ক্যাম্পাসে ৩২ টি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিতার্কিকদের অংশগ্রহনে হয়ে গেল দুর্নীতিবিরোধী জাতীয় বারোয়ারি বিতর্ক প্রতিযোগিতার বৃহত্তম আসর।স্টামফোর্ড ইয়েস গ্রুপ এর  এ আয়োজনে সহযোগিতায় ছিলো ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল ( টি আই বি)। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্টামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড.মু আলি নকি,বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ ( টি আই বি)  এর প্রধান নির্বাহি ড.ইফতেখারুজ্জামান,স্টামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্টার মোহাম্মদ আব্দুল মতিন,  বিশ্ববিদ্যালয় এর প্রক্টর এ এন এম আরিফুর রহমান।অধ্যাপক ড.মু আলী নকি বলেন ” স্টামফোর্ড ইয়েস কতৃক এ ধরনের আয়োজন তরুণ প্রজন্মকে দুর্নীতি প্রতিরোধে আরো বেশী সোচ্চার করবে,এ ধরনের কাজে স্টামফোর্ড ইয়েসকে সরাসরি পৃষ্টপোষক দেয়ায় টি আই বি এর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন উপাচার্য। টি আই বি এর নির্বাহি পরিচালক ড.ইফতেখারুজ্জামান মনে করেন ৩২ টি বিশ্ববিদ্যালয়কে নিয়ে এত বড় আয়োজন বারোয়ারি বিতর্ক প্রতিযোগিতায়  এটিই ছিল বৃহত্তম বিতর্কের আসর। তিনি আরো বলেন ” স্টামফোর্ড ইয়েস ৬৪ টি ইয়েস গ্রুপের মধ্যে  এখন পর্যন্ত তাদের কার্যক্রমে সেরা, গ্রুপ লিডার রাখিল খন্দকার নিশানের কার্যক্রমে প্রশংসা ও করেন টি আই বি এর এই নির্বাহি পরিচালক।

এছাড়া উপস্থিত ছিলেন স্টামফোর্ড ইয়েসের কো -অর্ডিনেটর জাফর সাদিক, স্টামফোর্ড ইয়েসের উপদেষ্টা ও অর্থনীতি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মহসিনুল করিম, ইয়েসের গ্রুপ লিডার রাখিল খন্দকার নিশান ছাড়া ও বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন অনুষদের ফ্যাকাল্টিগন উপস্থিত ছিলেন।স্টামফোর্ড ইয়েসের উপদেষ্টা মহসিনুল করীম বলেন ” টি আই বি এর সহায়তায় দুর্নীতিবিরোধী এই প্রথম জাতীয় বারোয়ারি বিতর্ক প্রতিযোগিতা তরুণ প্রজন্মের দুর্নীতির ভয়াবহতা সম্পর্কে তরুণ প্রজন্ম তথা সবাইকে সচেতন করবে”।তিনি টি আই বি এর নির্বাহি পরিচালককে উদ্দ্যেশ্য করে বলেন “আমাদের এই ফোরামে সবাই আসতে চায়,কিন্তু টি আই বি এর নিয়মঅনুযায়ী ৫০ জন সদস্যের বেশী সদস্য রাখা যায় না,সেজন্য সদস্য সংখ্যা বাড়ানোর ব্যাপারে তিনি টি আই বি এর সুদৃষ্টি রাখার আহবান জানান।
স্টামফোর্ড ইয়েসের গ্রুপ লিডার আবেগ আপ্লুত কন্ঠে বলেন ” এই স্টামফোর্ড ইয়েসে ৫ বছর ধরে কাজ করছি,দুর্নীতি প্রতিরোধে তরুণপ্রজন্মকে এর ভয়াবহতা  জানান দিতে চেষ্টা করেছি, বিদায়ের এই ক্লান্তিলগ্নে একটি কথা বলব দুর্নীতি প্রতিরোধে সচেতনতার পাশাপাশি এর বিরুদ্ধে দুর্গ গড়ে তুলতে হবে আমাদের সবার।
উল্ল্যেখ্য এ প্রতিযোগিতায় প্রথম স্থান অধিকারী হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আফসার।অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বে সেরা ১১ জনকে সার্টিফিকেট ও ক্রেস্ট দেয়া হয়।

 

// স

পছন্দের আরো পোস্ট