চাকরি দেন বা না দেন আবেদনের সুযোগ দেন

সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা বাড়ানোর দাবিতে অনেক দিন ধরে আন্দোলন চলছে। এই দাবি নিয়ে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের মধ্যে আলোচনা হয়েছে। দলটির সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের আশ্বস্ত করে বলেন, বিষয়টি নিয়ে সরকারের ফোরামে আলোচনা করা হবে।

চাকরির আবেদনের বয়সসীমা বাড়ানোর জন্য সেতুমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেন যুবলীগের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরী।

তিনি বলেন, ‘আমাদের বিশাল একটা অংশ আছে তরুণ, কিন্তু তারা বেকার। ৩০ এর উপরে বয়স হলে তারা আর চাকরির আবেদন করতে পারেন না। চাকরি দেন বা না দেন, এটা পরের বিষয়। কিন্তু অন্তত আবেদনের সুযোগ দিন।’

জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘এটা সরকারের বিষয়।’

এ সময় ওমর ফারুক বলেন, ‘আপনিও তো সরকারেরই একজন।’

তখন কাদের বলেন, ‘ঠিক আছে আমি এটা নিয়ে সরকারি ফোরামে আলোচনা করব।’

রোববার দুপুরে ধানমন্ডির এক কমিউনিটি সেন্টারে ৭ মার্চ ঢাকায় জনসভা সফল করতে আওয়ামী লীগের ঢাকা মহানগর, জেলা, পার্শ্ববর্তী জেলা, সহযোগী ও অঙ্গ সংগঠনের নেতা এবং এমপিদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন ওবায়দুল কাদের। এই সভায় নতুন ও নারী ভোটারদের আকৃষ্ট করার পলিসি নিয়ে কথা বলেন তিনি। এসময় চাকরির আবেদনের বয়সসীমা নিয়ে কথা হয়।

যুবলীগ চেয়ারম্যান আরো বলেন, ‘পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে চাকরিতে আবেদনের বয়সসীমা ৪০ বছর। আর অন্যান্য দেশে বয়সসীমাই নেই। কিন্তু আমরা কেন আমাদের তরুণদের পথরুদ্ধ করে রাখব?

পছন্দের আরো পোস্ট