খাবারের প্যাকেট দিয়ে ভোট চাইলেন প্রার্থী

আজ দুপুরে গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটক গলে মাঠে প্রবেশ করতেই দেখা যায় প্রায় সকলের হাতেই সাদা লাঞ্চ প্যাকেট। বিশাল কোন আয়োজন তো আজকে ছিলনা তাই কৌতুহল বেড়ে যায়। এরপর সামনে এগুতেই চোখ পড়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের পেছন দিয়ে খাবারের প্যাকেট নিয়ে দলেদলে শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসে প্রবেশ করছে।

কিছুক্ষণ পর বিশ্ববিদ্যালয়ের মাঠের ওপারের একটি বাসার ছাদে শুরু হয় মাইকিং। খাবারের জন্য শিক্ষার্থীদের আহবান করা এবং ভোট চাওয়া শুরু হয় মাইকে। ভোটের আগের দিন দুপুরের এমনই বর্ণনা করছিলেন্ নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক গণবির এক শিক্ষার্থী।
নির্বাচনে ভোট চাওয়ার এ অভিনব পন্থার প্রবর্তক ভিপি পদপ্রার্থী মোঃ সুজন রানা। মাইকে তার পক্ষে বারংবার ভোট চাওয়া হচ্ছিল।

শিক্ষার্থীরা জানান, প্রত্যেক ব্যাচের সিআর দের খাবার সংগ্রহ করার জন্য ফোন দেওয়া হয়েছে। এবং যারা কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে খেলছিল সেসকল খেলোয়ারদের উদ্দ্যশ্যেও খাবার পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে।এসময় বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মচারীদের হাতেও খাবারের প্যাকেট লক্ষ্য করা গেছে।

এর পরপরই বিশ্ববিদ্যালয়ের সহ-রেজিস্ট্রার মুহাম্মদ মুকাম্মেল হোসেনকে দেখা যায় যারা খাবারের প্যাকেট নিয়ে ভেতরে ঢুকছে তাদের বেরিয়ে যেতে বলছেন। মেইন গেইট দিয়ে যাতে কেউ খাবারের প্যাকেট নিয়ে বের না হতে পারে সেজন্য নিরাপত্তা প্রহরীরা সক্রিয় হয়ে উঠে।

এরকম প্রচারণায় বিরূপ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন অনেকে। সাধারণ শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি শিক্ষকেরাও হতবাক এমন ঘটনায়।সকাল থেকেই বিশ্ববিদ্যালয়ের পার্শ্ববর্তী এক মাঠে বিশাল রান্নাবান্নার আয়োজন চলছিল। বিশেষ সূত্রে জানা যায় প্রায় ২০০০ খাবার প্যাকেট বিলি করা হয়েছে আজকে।

এব্যাপারে প্রধান নির্বাচন কমিশনার অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম জানান, ক্যাম্পাসের বাহিরে নিজের প্রচারণার জন্য খাওয়াতে পারে। এ বিষয়টা আমাদের এখতিয়ারের মধ্যে পড়েনা। তবে শতভাগ সুষ্ঠ নির্বাচন চান তিনি।

পছন্দের আরো পোস্ট