অল্প সময়ে ক্লাবিয়ান হয়ে উঠা হাসান সাকিবের গল্প

ছোটবেলা কেটেছে হবিগঞ্জ সদরের সাধুর বাজার এলাকায়।প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে বেড়ে উঠা এই ছেলেটি কখনো বা স্বপ্ন দেখতো ডাক্তার হতে,আবার বাজারের টিভি মেকানিকের যন্ত্রবিদ্যা দেখে স্বপ্ন দেখতো ইঞ্জিনিয়ার হবে।ইঞ্জিনিয়ার হবার স্বপ্নে বিভোর ছেলেটি ফায়ার সার্ভিসের কর্মীদের দেখে কখনো ভাবে ফায়ার সার্ভিসের সদস্য হবে।স্বপ্নগুলি ভাটা পড়তো পড়ন্ত বিকেলে বন্ধুদের নিয়ে খোলা মাঠে ঘুড়ি উড়ানোতে।

স্বপ্ন তখন একটাই এই ঘুড়ি আকাশ ছোঁয়ার কল্পনায়।স্বপ্নবাজ এই কিশোরের স্বপ্ন হঠাৎ থমকে যায়।অল্প বয়সে বাবা মারা যায়।ছেলেটির নাম হাসান সাকিব।ছোট চাচার পরামর্শে ঢাকার একটি স্কুলে এনে ভর্তি করানো হয়।স্কুল, কলেজ এ প্রত্যাশিত রেজাল্ট নিয়ে ও ডুয়েটে চান্স হয়নি।তারপর ভর্তি হয় রাজধানীর স্ট্যামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং ডিপার্টমেন্ট এ।

বাবাহীন সংসারে সাকিবের বড় বোন,আর ছোট ভাই আছে।বাস্তবতার জীবনযুদ্ধ বুঝে উঠার আগেই ছোট চাচা সাকিবের পুরো দায়িত্ব নেন। তারপর আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি।খুব অল্প সময়েই নিজ বিশ্ববিদ্যালয়ে পরিচিত পেয়ে যায় সাকিব।

স্বনামধন্য ডিবেট ক্লাব “এস ডি এফ এ ” ফ্রেশার্স জাতীয় বিতর্ক প্রতিযোগীতায় টপ ফাইভ স্পীকার ইন বাংলা হওয়ার গৌরব অর্জন করেন।যুক্তিতে বিশ্বাসী এই তরুণ স্বল্প সময়েই ক্লাব বিতর্ক টপকিয়ে জাতীয় বিতর্ক প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করার সুযোগ পায়।এ পর্যন্ত বুয়েট ডিসি ন্যাশনালস ২০১৭,ফরিদপুর বিতর্ক উৎসব,ঢাকা ইউনিভার্সিটি ডিবেটিং সোসাইটি ( ডিইউডিএস) সহ অনেক জাতীয় বিতর্ক প্রতিযোগীতায় বেশ সফলতার সাথে অংশগ্রহণ করে।

কখনো বা বিশ্ববিদ্যালয় এর হয়ে,কখনো বা ক্লাবের হয়ে বিভিন্ন টেলিভিশন, রেডিওর প্রোগ্রাম করেছেন,তুলে ধরেছেন বিশ্ববিদ্যালয় এর সহ শিক্ষামুলক কার্যক্রম সহ বিভিন্ন কার্যক্রম। এস এ টিভির জনপ্রিয় অনুষ্ঠান ” ঈদ আড্ডা” তে মডেল অভিনেত্রী তানজিন তিশার সাথে এটিই ছিল তার অভিষেক প্রোগ্রাম। তারপর যমুনা টিভিতে দুই ঘন্টার লাইভ অনুষ্ঠান “সকালের বাংলাদেশ” এর অতিথী হিসেবে ছিলেন,এছাড়া এস এ টিভির “ইয়ুথ ভয়েস ” রেডিও টুডে এর “আফটারনুন ক্যাফে” রেডিও একাত্তরের ” ক্যাম্পাস হাংগামা” সহ বেশ কয়েকটি প্রোগ্রাম।

বর্তমানে পড়াশোনার পাশাপাশি কাজ করছেন এডুকেশন ভিত্তিক বাংলাদেশের প্রথম অনলাইন নিউজ পোর্টাল “এডুকেশন ২৪ ডট নেট “ও দৈনিক ইত্তেফাকে।

খুব অল্প সময়ে ক্লাবিয়ান হয়ে উঠা হাসান সাকিব বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয় ভিত্তিক দেশের প্রথম মাদকবিরোধী ফোরাম “স্ট্যামফোর্ড এন্টি ড্রাগ ফোরাম” এর প্রতিষ্ঠাতা কমিটির সদস্য,দুর্নীতি প্রতিরোধে কাজ করা টি আই বি এর সরাসরি নিয়ন্ত্রনে চালু হওয়া ” স্ট্যামফোর্ড ইয়েস” এর একজন সদস্য।

হাসান সাকিবসিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং এ অধ্যয়নরত সাকিব তরুণ প্রকৌশলীদের শীর্ষ সংগঠন ইন্সটিটিউট অব ইঞ্জিনিয়ার্স এ ( আই ই বি) তে অবস্থিত ইয়াং ইঞ্জিনিয়ারিং সোসাইটির প্রেস সেক্রেটারির দায়িত্বে আছেন।

সংগঠন,বিতর্ক, লেখালেখি করেও পড়াশোনায় বেশ এগিয়ে। সিজিপিএ ৪ এ এভারেজ ৩.৫০ নিয়ে ফ্যাকাল্টির প্রফেসরদের নজর কেড়েছে হবিগঞ্জের এই ছেলে।

আকাশ যত উঁচুতে থাকুক,তবু মানুষ স্বপ্ন দেখে আকাশ ছোঁয়ার।আকাশের বিশালতার কাছে সবাই হার মানতে বাধ্য।তারপর ও আকাশ ছোঁয়ার স্বপ্নে বিভোর হয় সবাই।পুরনো উচ্চতা পিছনে ফেলে আর ও উপরে উঠতে চায় সবাই।

নতুন বছরের শুরুতে এই ক্যাম্পাস তারকা আরো ভাল কিছু করুক এটাই প্রত্যাশা।

পছন্দের আরো পোস্ট