বর্তমানে প্রশ্নফাঁস একটি বড় কেলেঙ্কারি

শিক্ষপ্রতিমন্ত্রী কাজী কেরামত আলী বলেছেন, শিক্ষা ব্যবস্থায় বর্তমানে প্রশ্নফাঁস একটি বড় কেলেঙ্কারি। এটি থেকে বেরিয়ে আসতে হবে। আগামী বছর থেকে যাতে আর কোনোভাবে প্রশ্নফাঁস না হয় সেদিকে নজর রাখতে হবে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কারিগরি ও মাদরাসা বিভাগে নব-নিয়োগপ্রাপ্ত প্রতিমন্ত্রীর সংবর্ধনা রোববার রাজধানীর পরিবহন পুলে অনুষ্ঠিত হয়। এতে এ কথা বলেন তিনি।

কারিগরি শিক্ষাকে আধুনিকায়ন করার অঙ্গীকার করে কাজী কেরামত আলী বলেন, কারিগরি শিক্ষা দেশের মূল চালিকা শক্তি। এটিকে ঢেলে সাজাতে হবে। বেকারমুক্ত করতে কারিগরি শিক্ষার্থীরা পাস করে বেরিয়ে যাওয়ার আগেই একটি ট্রেডের ওপর প্রশিক্ষণ দিতে হবে। এ শিক্ষা ব্যবস্থাকে ডিজিটালাইজ করতে হবে। আমরা সে লক্ষ্য নিয়ে কাজ করে যাব।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, নন-এমপিও শিক্ষকদের এমপিওভুক্তি দিতে প্রধানমন্ত্রী সম্মতি দিয়েছেন। আমরা পর্যায়ক্রমে তা বাস্তবায়ন করে যাব। এ মন্ত্রণালয়কে আরো স্বচ্ছ ও সুন্দরভাবে গড়ে তুলতে সকলের সহযোগিতা কামনা করেন তিনি।

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেন, নতুন মন্ত্রীকে বরণ করতে আজ এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। আমরা উভয়ে সমন্বয় করে শিক্ষা ব্যবস্থাকে আরো এগিয়ে নিয়ে যাব।

নাহিদ বলেন, শিক্ষা মন্ত্রণালয় একটি বড় মন্ত্রণালয়। এখানে কাজের পরিমাণ অনেক বেশি। এ কারণে শিক্ষা মন্ত্রণালয়কে দুভাবে ভাগ করা হয়েছে। আমরা কারিগরি শিক্ষাকে অধিক গুরুত্ব দিয়ে আসছি। বর্তমানে দেশের ১৪ শতাংশ শিক্ষার্থী পড়ালেখা করছে। পর্যায়ক্রমে তা আরো বাড়ানোর প্রক্রিয়া চলছে।

অনুষ্ঠানের কারিগরি ও মাদরাসা বিভাগের জনবল ও রুম সংকট তুলে ধরা হয়। এছাড়া অনুষ্ঠানের শেষে স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসা শিক্ষক সমিতির সব দাবি-দাওয়া তুলে ধরে স্বারকলিপি গ্রহণ করেন প্রতিমন্ত্রী কাজী কেরামত আলী। অনুষ্ঠানে কারিগরি ও মাদরাসা বিভাগের সচিব মো. আলমগীর হোসেনের সভাপত্বিতে উভয় মন্ত্রণালয় ও অধীনস্থ বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা, শিক্ষক প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

//স

পছন্দের আরো পোস্ট