গণমাধ্যমে থেকে মানুষকে তথ্যসেবা দিতে চান শামছুজ্জামান নাঈম

শামছুজ্জামান নাঈম। বাবা সোলাইমান মাষ্টার বাংলাদেশ রেলওয়ের ষ্টেশন মাষ্টার ছিলেন। মা কামরুন্নাহার গৃহিণী।কাজ করছেন স্যাটেলাইট চ্যানেল একাত্তর টেলিভিশনের মালয়েশিয়া প্রতিনিধি হিসেবে।

পড়াশুনা
পড়াশুনায় খুব একটা মনযোগী না হলেও রেজাল্ট কখনই খারাপ ছিল না। ক্লাসের নির্ধারিত বইয়ের চেয়ে বিখ্যাত ব্যক্তিদের লেখা বই পড়তে বেশি পছন্দ নাঈমের। এর মাধ্যমেই সত্যিকারের জ্ঞান অর্জন বলে মানেন তিনি। অনার্স শেষ করে মাস্টার্স এ ভর্তি হয়ে শেষ করার আগেই উচ্চ শিক্ষায় পাড়ি জমান মালয়েশিয়ায়।

পেশা
পেশায় একজন গণমাধ্যমকর্মী। বাংলাদেশে থাকা অবস্থায় নাঈম ২০০৯ সালে যুক্ত হন বেসরকারি এনজিও সংস্থা নারী মৈত্রীতে। পরে একই বছরে শিশুদের জন্য কয়েক বন্ধুসহ গড়ে তোলেন ন্যাশনাল চাইল্ড পার্লামেন্ট অফ বাংলাদেশ (এনসিপিবি)। যার সেক্রেটারী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন তিনি। ২০১১ সালে গণমাধ্যমের সঙ্গে সরাসরি যুক্ত হয়ে আরটিএনএন.নেট-এর একজন স্টাফ রিপোর্টার হিসেবে নির্বাচন কমিশন বিটে কাজ শুরু করেন। পরে কিছুদিন জাতীয় পার্টি, জামায়াত, আওয়ামী লীগ এবং সর্বশেষ বিএনপি বিটে চার বছর একটানা কাজ করেন। এখন কাজ করছেন স্যাটেলাইট চ্যানেল একাত্তর টেলিভিশনের মালয়েশিয়া প্রতিনিধি হিসেবে।

কি হতে চেয়েছিলেন
ছোটবেলায় পাইলট হতে চেয়েছিলেন। না হওয়ার কারণ উল্লেখ করে বলেন, ‘বেড়ানোর চরম নেশা থাকায় পড়াশোনার চাপ কমাতে আর্টস নিলাম। পরে বুঝলাম আর্টস এ পড়ে পাইলট হওয়া যাবে না। তারপর চাইলাম আইনজীবী হবো কিন্তু নানান কারণে সেটাও পূরন হলো না। লেখালেখির প্রতি প্রচন্ড ঝোঁক এবং এক বড় ভাইয়ের পাবলিক রিলেশন বিষয়ক কিছু কাজ করতে গিয়ে মনের অজান্তেই গণমাধ্যমের প্রতি ভালোবাসা জন্মায়। তারপর এ পথে অক্লান্ত চলা শুরু। সাংবাদিকতায় বিভিন্ন মেয়াদি ট্রেনিং কোর্স সম্পাদন, সিনিয়রদের কাছ থেকে হাতে কলমে শিক্ষা গ্রহনের এক পর্যায়ে নিজেকে আবিস্কার করলাম গণমাধ্যমের একজন গর্বিত কর্মী হিসেবে।’

প্রিয়
প্রিয়তে সর্বপ্রথমেই রয়েছে ভ্রমণ। এছাড়া ইতিহাস ভিত্তিক ছবি দেখা আর ছবি তোলাতে রয়েছে ব্যাপক আগ্রহ।

অর্জন
জীবন তো মাত্র শুরু- অর্জনের হিসেব কষার সময় এখনও অনেক বাকি। তবে গণমাধ্যমে কাজ করার সুবাদে বহু অভিজ্ঞতা অর্জনের সুযোগ হয়েছে।

ভবিষ্যৎ ভাবনা
ভবিষ্যৎ নয় বর্তমান নিয়ে সব সময় ভাবতে পছন্দ করি- তবে ভাগ্যে বিশ্বাস করি। ভবিষ্যৎ কি হবে তা ভাগ্য নির্ধারণ করবে। গণমাধ্যমে থেকে মানুষকে আরও বেশি তথ্যসেবা দিতে চাই।

পছন্দ
নতুন নতুন জায়গায় ঘুরতে অত্যধিক পছন্দ করেন নাঈম- ঘুরাঘুরির খরচের জোগান দিতেই ছাত্রাবস্থায়ই চাকুরীতে জয়েন তিনি। দেশে থাকাবস্থায় বাংলাদেশের ৬২টি জেলা ভ্রমণ করেছেন। বিশেষ করে বান্দরবানের কেওক্রাডং, তা-জিং-ডং ভ্রমণ ছিল সারাজীবন মনে রাখার মত। এছাড়া মালয়েশিয়ার প্রধান প্রধান পর্যটন এলাকাগুলো ভ্রমণ হয়েছে। গিয়েছেন ইন্দোনেশিয়ার রাজধানী জাকার্তায়ও। এছাড়া গান শুনা, মুভি দেখা এবং বই পড়াও রয়েছে পছন্দের তালিকায়।

ভাল লাগে
পছন্দের খাবারের তালিকায় প্রথমেই রয়েছে ভর্তা, শাক-সব্জি। এছাড়া সি-ফুড, হালিম, ফুচকা ইত্যাদি। পুরনো দিনের গান কিংবা আর্টফিল্ম দেখতে। এছাড়া শিশুতোষ মুভিও রয়েছে ভালো লাগার তালিকায়।

লেখাপড়া ভাল করতে হলে
লেখাপড়া ভাল করতে হলে অবশ্যই ক্লাস নির্ভর পড়াশুনার বাইরে অন্যান্য বিষয়েও ব্যাপক পড়াশুনা করতে হবে। তাছাড়া বিশ্বে নিয়মিত যা ঘটছে তা সম্পর্কে ধারণা থাকতে হবে। মোটকথা জ্ঞানের পরিধি বাড়াতে পড়ার বিকল্প নেই।

শামছুজ্জামান নাঈম

পছন্দের আরো পোস্ট