বই উৎসবের উদ্বোধন

২০১৮ সালের বই উৎসবের উদ্বোধন করা হয়েছে। শনিবার সকালে গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আনুষ্ঠানিকভাবে এই ফলাফল ঘোষণা ও বই উৎসবের উদ্বোধন করেন। এসময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সার্বিক ফলাফলে সন্তোষ প্রকাশ করেন। এজন্য তিনি সংশ্লিষ্ট সবাইকে ধন্যবাদ জানান

আগামী ১ জানুয়ারি সোমবার সারাদেশে ‘জাতীয় পাঠ্যপুস্তক উৎসব’ উদযাপন করা হবে। এই শিক্ষাবর্ষে ১০,৭০,৯৬৬ জন শিক্ষার্থী বেড়ে যাওয়ার ফলে অতিরিক্ত ৭১,৯৩,৩৬৯টি পাঠ্যবই মুদ্রণ করা হয়েছে।গত ১ নভেম্বর জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষা শুরু হয়েছিল। শেষ হয় ১৮ নভেম্বর। এই দুই পরীক্ষায় মোট পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ছিল প্রায় ২৪ লাখ ৬৯ হাজার। অন্যদিকে ১৯ থেকে ২৬ নভেম্বর পর্যন্ত প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রায় ৩১ লাখ পরীক্ষার্থী অংশ নেয়।

প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা ১৯ নভেম্বর শুরু হয় । বেলা ১১টায় উভয় স্তরে ইংরেজি বিষয়ের মাধ্যমে ছোটদের এ বড় পরীক্ষা শুরু হয়।এক উপজেলার উত্তরপত্র অন্য জেলার মাধ্যমে আরেক উপজেলায় বণ্টন করা হয়। এবার প্রথমবারের মতো টেবুলেশন কার্যক্রমও যেই উপজেলা খাতা দেখে সেখানে করার নিয়ম জারি করা হয়।

এবার পরীক্ষায় ৩০ লাখ ৯৬ হাজার ৭৬ ছাত্রছাত্রী অংশ নিচ্ছে। এদের মধ্যে প্রাথমিকে পরীক্ষার্থী ২৮ লাখ ৪ হাজার ৫০৯ ও ইবতেদায়িতে ২ লাখ ৯১ হাজার ৫৬৬ জন। উভয় পরীক্ষায় গত বছরের তুলনায় এবার ১ লাখ ৩৬ হাজার পরীক্ষার্থী কমেছে।

প্রাথমিকে মোট পরীক্ষার্থীর ১২ লাখ ৯৯ হাজার ৯৮৫ জন ছাত্র এবং ১৫ লাখ ৪ হাজার ৫২৪ জন ছাত্রী। গত বছরের তুলনায় ১ লাখ ২৬ হাজার ৬৪ জন শিক্ষার্থী কমে গেছে। অপরদিকে ইবতেদায়িতে ছাত্র ১ লাখ ৫৩ হাজার ১৫২ ও ছাত্রী ১ লাখ ৩৮ হাজার ৪১৪ জন।

ইবতেদায়িতে কমেছে ৮ হাজার ১৪৯ জন। সারা দেশে মোট ৭ হাজার ২৭৯ কেন্দ্রে একযোগে এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। এছাড়া দেশের বাইরে ১২টি কেন্দ্রে এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়।

পছন্দের আরো পোস্ট