যে স্কুলে মাটিতে ক্লাস করে শিশু শিক্ষার্থীরা

বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে টিন সেটের ঘর আর নড়বড়ে অবকাঠামো নিয়ে চলছে উপজেলার ৩০৬ নং মধ্য কালিকাবাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। এখানের শিক্ষার্থীরা জোড়াতালি দেয়া বেঞ্চে আর প্রাক-প্রাথমিকের শিশু শিক্ষার্থীরা মাটির ফ্লোরে ক্লাশ করছে। এখনো কোন সরকারি সহযোগীতার ছোঁয়া পড়েনি।

বলইবুনিয়া ইউনিয়নের এ প্রাচীন জনপদে ১৯২০ সালে একটি মক্তব প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে এ বিদ্যাপিঠের শুভ সূচনা হয় । সেই থেকে এ বিদ্যাপিঠের দীর্ঘ পথচলা। নানা চড়াই উৎরাই পাড় করেছে এ প্রতিষ্ঠানটি। জাতীয়করণের আগে রেজিঃ প্রাথমিক বিদ্যালয় হিসেবেও ধুঁকে ধুঁকে চলছিল এ বিদ্যালয়টি। জাতীয়করণের ঘোষনার পর নড়ে নড়ে বসে শিক্ষক সহ স্থানীয়রা। বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটি ও স্থানীয় লোকজনের সহায়তায় কাঠ ও টিন সেটের অবকাঠামোতে নির্মিত হয় এ বিদ্যালয়টি।

বর্তমানে বিদ্যালয়টি সংস্কার আর শ্রেণী কক্ষের অভাবে দীর্ঘদিন যাবৎ দৈন্যদশায় পড়ে আছে। দরজা জানালা নেই বললেই চলে। শ্রেণী কক্ষের বেঞ্জ জোড়াতালি দিয়ে ঠেকানোর চেষ্টা ও অন্যান্য আসবাবপত্র নড়েবড়ে অবস্থায় । শিক্ষার্থীরা ঠাসাঠাসি ক্লাশ করছে। বৃষ্টির সময়ে ক্লাশ চালানো ও গরমে শিক্ষক-শিক্ষার্থী ক্লাশ করতে পারেনা। সহায়তার মধ্যে ছিল বলইবুনিয়া ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মো. শাহাজাহান খান ২ বান টিন ও নগদ ৬ হাজার টাকা । প্রাক-প্রাথমিক স্তরের শিক্ষার্থীদের মাটির ফ্লোরে ক্লাশ করতে হয়।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা দিলরুবা আক্তার জানান, বিদ্যালয়টি ঝুঁকিপূর্ণ । রয়েছে আসবাবপত্র সহ অবকাঠামোগত সমস্যা। তাই পুনঃনির্মান করা একান্ত জরুরী। ##

পছন্দের আরো পোস্ট