শিক্ষকের বিরুদ্ধে ছাত্রীদের অভিযোগ

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) ইনস্টিটিউট অব ফরেস্ট্রি অ্যান্ড এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্সের এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে ছাত্রীদের সঙ্গে ‘কুরুচিপূর্ণ’ আচরণের অভিযোগ উঠেছে। ইনস্টিটিউটের ৩য় সেমিস্টার, ৮ম সেমিস্টার এবং ছাত্রীদের সম্মিলিত একটি পক্ষ থেকে মোট তিনটি অভিযোগপত্রের ভিত্তিতে বৃহস্পতিবার একাডেমিক কমিটির জরুরি সভায় এ ঘটনায় তিন সদস্যের একটি ‘অভিযোগ ও তথ্য অনুসন্ধান কমিটি’ গঠন করা হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করে ইনস্টিটিউটের পরিচালক প্রফেসর ড. দানেশ মিয়া বলেন, শিক্ষার্থীদের অভিযোগের প্রেক্ষিতে প্রফেসর গিয়াস উদ্দিন আহমেদকে প্রধান করে তিন সদস্যের কমিটি গঠন করে দেয়া হয়েছে। দ্রুত সময়ের মধ্যে তাদের প্রতিবেদন দিতেও বলা হয়েছে। কমিটির অন্য দুই সদস্য হলেন- প্রফেসর ড. মোজাফফর আহমেদ ও প্রফেসর ড. আল-আমিন।

তিনি আরও জানান, একাডেমিক কমিটির সভায় অভিযুক্ত শিক্ষকও উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া প্রতিবেদন প্রকাশ হওয়ার আগ পর্যন্ত অভিযুক্ত শিক্ষক কোনো একাডেমিক কার্যক্রমে অংশ নেবেন না বলেও সভায় সিদ্ধান্ত হয়।

সূত্রে জানা যায়, গত ২ নভেম্বর লোহাগাড়া (চুনতি) ফাইস্যাখালী, ইনানী ও টেকনাফের উদ্দেশ্যে শিক্ষা সফরে যান ইনস্টিটিউটের ৩য় সেমিস্টারের শিক্ষার্থীরা। ৪৭ শিক্ষার্থীর এ সফরে ১৭ জন ছাত্রী ও ৩০ জন ছাত্র অংশ নেন। যার নেতৃত্বে ছিলেন অভিযুক্ত সেই শিক্ষক। সেই সফরে ড. মাহফুজুর রহমান নামে আরও এক শিক্ষকও ছিলেন। যদিও তার বিরুদ্ধে এমন কোনো অভিযোগ উঠেনি।

শিক্ষা সফরে অংশ নেয়া এক শিক্ষার্থী জানান, অভিযুক্ত শিক্ষক সফরের নানা সময় শিক্ষার্থীদের সাথে খারাপ আচরণ করেছেন।

অভিযুক্ত ওই শিক্ষক বলেন, শিক্ষা সফরে আমি বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থীকে বকাঝকা করি। তবে কোনো ছাত্রীর সঙ্গে ‘কুরুচিপূর্ণ’ আচরণ করিনি। ক্লাসে কড়াকড়ি ও নাম্বার কম দেই বলেই তারা এমন অভিযোগ এনেছে। এছাড়াও অন্য সেমিস্টার থেকে যে অভিযোগ এসেছে তাদের সঙ্গে আমার কোনো একাডেমিক সম্পর্কই নেই।

পছন্দের আরো পোস্ট