জরাজীর্ন ভবনে ঝুঁকি নিয়ে ক্লাশ

বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জ উপজেলার ১৭৩ নং আমবাড়িয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে ঝুঁকি নিয়ে ক্লাশ করছে। যে কোন সময় ভবনটি ভেঙ্গে পড়ে ঘটতে পারে বড় কোন দূর্ঘটনা। সংস্কার আর শ্রেণী কক্ষের অভাবে দীর্ঘদিন যাবৎ দৈন্যদশায় পড়ে আছে ভবনটি।

১৯৭৫ সালে এ বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত। ১৯৯৪-৯৫ অর্থবছরে ৪ লক্ষ ২০ হাজার টাকা বিদ্যালয়টি নির্মিত হয়। নির্মানের বছর দুই যেতে না যেতেই পলেস্তরা খসে খসে পড়তে শুরু করে। বর্তমানে বিদ্যালয়টি খুবই ঝুঁকিপূর্ণ। যে কোন মূহুর্তে ধসে পড়তে পারে। সামনের বারান্দার সবকটি পিলার পুরোটাই ভেঙ্গে গেছে। পলেস্তরা পড়ে পড়ে সব জায়গার রড দৃশ্যমান। ২০০৩ সালে জলছাদ সংস্কারের জন্য মাত্র ২০ হাজার টাকা বরাদ্ধ করা হয়। ২০১৪ সালে বিদ্যালয়টি সম্পূর্ন পরিত্যক্ত ঘোষনা করা হয়। ২০১৫-১৬ অর্থবছরে লেট্রিন সংস্কারের জন্য ১৯ হাজার ৫ শ’ টাকা সরকারিভাবে বরাদ্ধ হয়। বর্তমানে তাও প্রায় ব্যবহারের অনুপোযোগী হয়ে পড়েছে।

পরিত্যক্ত ঘোষনার পরও শ্রেণী কক্ষের অভাবে শিক্ষক শিক্ষার্থীরা ঝুঁকি নিয়ে ক্লাশ করছে। অভিভাবকরা তাদের সন্তানদের বিদ্যালয়ে পাঠাতে ভয় পাচ্ছে। এ বিদ্যালয় থেকে নিকটবর্তী বিদ্যালয়ের দূরত্ব প্রায় ২ কিলোমিটার । যার কারনে শিক্ষার্থীরা অন্যত্র যেতেও পরছেনা। বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটি ও স্থানীয় লোকজনের সহায়তায় টিন সেটের বারান্দা দিয়ে ক্লাশ করানো হচ্ছে। ঠাসাঠাসি করে মাটির ফ্লোরে শিক্ষকদের ক্লাশ নিতে ও শিক্ষার্থীদের ক্লাশ করতে নানা সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছে।

বৃষ্টির সময় ক্লাশ করা সম্ভব হয়না। বাধ্য হয়ে ক্লাশ ছুটি দিতে হয়। পরিত্যক্ত ভবনে ঝুঁকি নিয়ে শিক্ষকরা এখনো অফিসিয়াল কার্যক্রম পরিচালিত করছে। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিক তাপস কুমার মন্ডল জানান, বিশ্ব ব্যাংকের সহায়তায় একটি ভবন হবে বলে জানা গেছে। কিন্তু কোন কার্যক্রম পরিলক্ষিত হচ্ছে না।

পছন্দের আরো পোস্ট