আন্দোলন সংগ্রামে “প্রাইভেট ইউনিভার্সিটি স্টুডেন্টস এলিয়েন্স”

প্রতিষ্ঠার সময় মূল উদ্দেশ্য ছিল প্রাইভেটিয়ানদের মধ্যে একতা, সম্মিলিত শক্তি ও ভাতৃত্বের বন্ধন তৈরী করা,এবং ২০১৫ সালে শিক্ষার উপর ভ্যাট সংযোজন/আরোপ কে ইস্যু করেই এই পেজ এর জন্ম। প্রধান সাফল্য ২০১৫ এর ৭.৫ ভ্যাট আন্দোলন এ প্রাইভেটিয়ানদের কেন্দ্রীয় প্ল্যাটফর্ম হিসেবে আস্থা অর্জন করে আন্দোলনে নেতৃত্ব দেয়া এবং শান্তিপূর্ণ একটা আন্দোলনের ইতিহাস তৈরী করে সরকার কে ভ্যাট বাতিলে বাধ্য করা।
ভ্যাট আন্দোলনের সময়ে প্রায় ২ কোটি মানুষ ওই ৩ দিনে এই পেজ ভিজিট করেছেন সর্বশেষ ও নির্ভরযোগ্য তথ্য প্রাপ্তির জন্য। যা আমাদের বড় অর্জন।

 

অতঃপর প্রতিষ্ঠার মূল উদ্দেশ্য, একতা ও বন্ধন তৈরী করা এবং সম্পূর্ণরুপে দলীয় রাজনীতি মুক্ত থেকে যে কোন সঠিক ছাত্র আন্দোলনে পৃষ্ঠপোষকতা করা, প্রাইভেটিয়ানদের একটা নির্ভরযোগ্য প্ল্যাটফর্ম দেয়া তাদের দাবি, তাদের কথা, তাদের অভিযোগ, অনুভুতি ইত্যাদি প্রকাশের জন্য। যাতে অনেকটাই সফল। এটি দেশের প্রথম এবং একমাত্র অরাজনৈতিক ছাত্র সংগঠন। যা ভবিষ্যতে সত্যিকার ছাত্র সংগঠনের রুপ নেবে আর সংগঠনটি সেই উদ্দেশ্যেই এগিয়ে চলছে।
প্রাইভেট ইউনিভার্সিটি সেক্টরে শিক্ষার্থী বান্ধব, মান সম্পন্ন উচ্চশিক্ষার পরিবেশ নিশ্চিত করা তাদের প্রধান লক্ষ্য। একই সাথে এই সেক্টর এর শিক্ষার্থীদেরকে কে শোষন মুক্ত, অন্যায় ও অবিচার হতে রক্ষা করর সুবিচার ও ন্যায় বিচার পাবার জন্য  PUSAB   সবসময়েই কাজ করে যাচ্ছে। শিক্ষার্থীদের যে কোন বিপদে পাশে দাঁড়িয়ে সকলকে একত্রিত করে তাদের পক্ষে আওয়াজ তোলা ও অন্যায়কারী / প্রতিষ্ঠানকে সুবিচারে বাধ্য করে যাচ্ছে।  এরই ধারাবাহিকতায় আহসানুল্লাহ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক কর্তৃক শিক্ষার্থী লাঞ্ছিত এর আলোচিত ঘটনায় শিক্ষার্থীদের সাপোর্ট দিয়ে কর্তৃপক্ষ ও পুলিশ কে ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা গ্রহনে বাধ্য করা, নর্থ সাউথ এর শিক্ষার্থীকে বসুন্ধরা গ্রুপ কর্তৃক প্রহারে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে পাশে থেকে বসুন্ধরা কর্তৃপক্ষকে ক্ষমা চাওয়া ও ওই শিক্ষার্থীর চিকিৎসা ও চাকরি নিশ্চিত করনে বাধ্য করা আন্দোলনের মাধ্যমে, ব্র‍্যাক এর রেজিস্ট্রার কর্তৃক শিক্ষক লাঞ্চনার ঘটনার আন্দোলনে সরাসরি কাজ করে রেজিস্ট্রারের অপসারন ও শিক্ষক কে পুনঃ র্বহাল, সাউথ ইস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের অনিয়ম দুর্নীতি ইত্যাদির বিরুদ্ধে শিক্ষার্থী আন্দোলনে সরাসরি সাপোর্ট দিয়ে কর্তৃপক্ষকে শিক্ষার্থীদের দাবি মানতে বাধ্য করা সহ অসংখ্য নৈতিক প্রয়োজনে আমিরা নিরলস ও নি:স্বার্থ ভাবে শিক্ষার্থীদের জন্য কাজ করে যাচ্ছে।
লক্ষাধিক ছাত্রদের এই প্রিয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম/সংগঠন শোষন মুক্ত, ন্যায় ও শিক্ষার্থী বান্ধব ও উন্নত শিক্ষার পরিবেশ নিশ্চিত করতে চায় প্রতিটা প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে। সংগঠনটি বিশ্বাস করে প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় সমূহ একদিন এদেশের বিশ্ববিদ্যালয় সেক্টর কে বিশ্বের কাছে তুলে ধরবে।
পছন্দের আরো পোস্ট