অনুষ্ঠিত হল প্রি-ডাব্লিউএইচও সিমুলেশন ওয়ার্কশপ

বাংলাদেশে এবং সার্ক অঞ্চলে প্রথম বারের মত আয়োজিত হতে যাচ্ছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ছায়া সম্মেলন। যার উপর ভিত্তি করে গত ২০ অক্টোবর রাজধানীর গ্রিন লাইফ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আয়োজন করা হয় ‘প্রি ডাব্লিউএইচও সিমুলেশন ওয়ার্কশপ-১০১’।

ডাব্লিউএইচও সিমুলেশন হচ্ছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সম্মেলনের আনুষ্ঠানিক সভার অনুকরণে করা একটি সভা, যেখানে অংশগ্রহণকারীরা বিভিন্ন দেশ, এনজিও কিংবা শিল্প ক্ষেত্রের প্রতিনিধি হয়ে তর্ক- বিতর্ক, আলোচনায় অংশগ্রহন করে। সভায় থাকা প্রতিনিধিদের সংখ্যাগরিষ্ঠ ভোটে নির্বাচিত মোশনকে আলোচনার পর বিশ্ব স্বাস্থ্যসংস্থার কোড অফ কন্ডাক্টের আলোকে রেজুলেশন হিসেবে প্রকাশ করা হয়।

বিভিন্ন দেশের ডেলিগেটরা বৈশ্বিক স্বাস্থ্য বিষয় নিয়ে আলোচনা করে, তা হতে পারে অতীত, বর্তমানের কিংবা ভবিষ্যতের। প্রতিনিধিরা আসন্ন কিংবা বর্তমানে থাকা স্বাস্থ্য সমস্যার সমাধান পেশ করার ক্ষমতা রাখে। ডাব্লিউএইচও সিমুলেশনে রাজনৈতিক মিত্রতা, শত্রুতা বিদ্যমান এমনকি আন্তর্জাতিক কূটনীতিও আছে। এখানে প্রতিনিধিরা নিজের দেশের সার্থ রক্ষার জন্য অন্য দেশের প্রতিনিধিকে নাকানি চুবানি খাওয়াতে পারে, এমনকি অন্য দেশের প্রতিনিধির সাথে গোপন চুক্তিতেও লিপ্ত হতে পারে। এখানে বিতর্কের ক্ষেত্রে জাতিসংঘের বিতর্ক পদ্ধতি অনুসরন করা হয়।

বাংলাদেশকে দুইবার বিশ্ব স্বাস্থ্য সম্মেলনে প্রতিনিধিত্ব করা ডা. বুলবুল আহমেদ তাঁর অভিজ্ঞতা সবাইকে জানান। তিনি ২০ অক্টোবর দুপুরের পর “ডাব্লিউএইচও সাধারণ সম্মেলন” শিরোনামের উপর অংশগ্রহণকারীদের একটি প্রশিক্ষণ অধিবেশন নেন। “বিশ্বব্যাপী স্বাস্থ্য সেবা নীতি (UHC Policy)” এর বক্তা হিসেবে ডা. তৌফিক জোয়ার্দার বলেন, ’প্রত্যেকেই সুষ্ঠু স্বাস্থ্য সেবা পাবার অধিকার রাখে। আর্থিক দৈন্যের জন্য যেন কেউ স্বাস্থ্য সেবা থেকে বঞ্চিত না হয় সেই দিক আমাদের লক্ষ্য রাখা উচিৎ’।পুরো ছায়া সম্মেলন জুড়ে অংশগ্রহণকারীদের সরব উপস্থিতি এবং বিভিন্ন প্রশিক্ষণে অংশগ্রহণের উদ্যম ছিল লক্ষণীয়। দিনব্যাপী এই সম্মেলনের শেষে সকল অংশগ্রহণকারীদের মতামত ছিল ইতিবাচক।

বাংলাদেশে ডাব্লিউএইচও এর সিমুলেশন-এর প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি আল্লামা ইসতেসান বলেন, ’আমরা এই সিমুলেশনের প্রসিদ্ধি এবং পরিচিতি পুরো বাংলাদেশের সকল স্কুল কলেজে বিশ্ববিদ্যালয়ে পৌছে দিতে চাই এবং যাতে বিশ্ব পরিমণ্ডলে আমরা নিজেদের উপস্থাপন করার ক্ষমতা অর্জন করি সেই বিষয়ে সকলকে সচেতন করতে চাই।”

আগামী ২৬ শে অক্টোবর সারাদিন ব্যাপী EMK center এ আয়োজিত হবে বিভিন্ন স্কুল,কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীদের নিয়ে প্রশিক্ষণ (WHOISB 2017 CC Survival Training & Meet up 102)। এই প্রশিক্ষণে Small Group Session এর মাধ্যমে শেখানো হবে বাংলাদেশের স্বাস্থ্য সমস্যাগুলো।

অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবে বাংলাদেশের সর্বকনিষ্ঠ এভারেস্ট আরোহী এবং একমাত্র এভারেস্ট আরোহী মেডিকেল স্টুডেন্ট।

বাংলাদেশে ডাব্লিউএইচও এর সিমুলেশন এর সাংগঠনিক কমিটি প্রধান ডাঃ ফাতেমা তুজ্জান্নাত বলেন, “বাংলাদেশে ডাব্লিউএইচও এর সিমুলেশন কিছু লক্ষ্য নিয়ে সামনে এগিয়ে যাচ্ছে। যাদের মধ্যে হচ্ছে, স্বাস্থ্য বিষয়ক আইন গুলোর সাথে পরিচিতি করা, একই বিষয়ে আগ্রহী মানুষগুলোর মধ্যে দীর্ঘ মেয়াদি যোগাযোগব্যবস্থার পরিবেশ তৈরী করা, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এবং অনান্য আন্তর্জাতিক সংস্থায় কাজ করার প্রসিডিউর শেখানোর মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের জ্ঞান ব্যবস্থা কে সমৃদ্ধ করা, আর্ন্তজাতিক শিক্ষা,বিশ্ব স্বাস্থ্য, স্বাস্থ্য সচেতন আইন এবং লোকনীতিতে আগ্রহী ছাত্রছাত্রীদেরকে তাদের চিন্তাভাবনা আলোচনার মাধ্যমে একে অপরের সাথে আদানপ্রদান করতে উৎসাহিত করা।”

পছন্দের আরো পোস্ট