স্থানীয় সন্ত্রাসীদের আতঙ্কে শিক্ষার্থীরা

মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (মাভাবিপ্রবি) প্রতিদিন স্থানীয় বখাটের লাগামহীন দৌরাত্মে অতিষ্ঠ শিক্ষার্থীরা। শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থ হচ্ছে মাভাবিপ্রবি প্রশাসন। বহিরাগতরা বার বার সাধারণ শিক্ষার্থীদের উপর হামলা ও ছাত্রীদের ইভটিজিং করলেও বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ কোনো পদক্ষেপ না নেওয়ায় ক্ষোভের আগুনে পুড়ছেন শিক্ষার্থীরা।

সর্বশেষ সোমবার (০২ অক্টোবর) বিশ্ববিদ্যালয় ২য় গেট সংলগ্ন এলাকায় বহিরাগত শাহিন নামে এক ছেলের হামলায় রসায়ন বিভাগের মাস্টার্স ১ম বর্ষ ১ম সেমিস্টারের শিক্ষার্থী মোখলেসুর রহমান মুহিদ গুরুতর আহত হয়েছেন। বর্তমানে মুহিদ টাঙ্গাইল সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। তার মাথায় ৬ টি সেলাই দেয়া হয়েছে।

প্রতিবাদে শিক্ষার্থীরা সোমবার (০২ অক্টোবর) ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ করেছেন। এবং বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন সন্তোষ বাজার এলাকায় কিছু দোকান ভাংচুর করেছেন। এ সময় তারা প্রশাসনিক ভবনের সামনে অবস্থান নিয়ে নিরাপত্তা চেয়ে বিভিন্ন শ্লোগান দিয়েছেন। আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা জানান, তাদের দাবি একটাই ক্যাম্পাসে নিরাপত্তা চাই। এর আগেও এমন বহিরাগদের হামলায় প্রশাসনিক ভাবে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। শিক্ষার্থীরা বর্তমানে ক্যাম্পাসে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের বিএমবি বিভাগের ৩য় বর্ষের ছাত্র রাসেল মাহমুদ বলেন, ক্যাম্পাসে সাধারন শিক্ষার্থীদের কোনো নিরাপত্তা নেই। এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কোনো মাথা ব্যাথা নেই যা আমাদের হতাশ করেছে।

এসব ঘটনা ঘটার পর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর প্রফেসর ড. সিরাজুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সীমাবদ্ধতার কথা স্বীকার করে বলেন, ক্যাম্পাসের বাহিরে কোনো ঘটনা ঘটলে আমাদের কিছু করার থাকে না। তিনি আরো জানান, বিষয়টি টাঙ্গাইল পুলিশ প্রসাশনকে জানানো হয়েছে। পুলিশ প্রশাসন বিষয়টি খুব শীঘ্রই সুরাহ করবেন বলে আস্বস্ত করেছেন।

এদিকে ঘটনার পর থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটক ও দ্বিতীয় ফটকের সামনে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

পছন্দের আরো পোস্ট