মিছিলের হেলাল হাফিজ

নাহ!আজ আর ঘুমাবো নাহ
নিজ হাতে বানানো এক কাপ চা
আরেকটা সিগারেট হাতে নিয়ে
রবীন্দ্রনাথ শুনবো,হেলাল হাফিজ পড়বো।
চায়ের কাপ হাতে দেওয়ার মত কেউ নেই,
একাই আকাশ দেখবো,পায়চারি করবো।
কাউকে আকাশ দেখাতে না পাড়ার কষ্ট,
আজ জলাঞ্জলি দিয়েছি টি এস সির মোড়ে।
মোকাররম স্যার বলেছেন,
ভুল মানুষকে আকাশ দেখাতে নেই
আকাশের বিশালতা সবার সহ্য হয়না।
কোন জলে আগুন জ্বলে হয়তো কেউ জানেনা
হেলাল হাফিজ ঠিকই জানতেন।
তাই লিখেছিলেন এক অমর মহাকাব্য
যার হয়েছিল ২৭ সংস্করণ।
শুধু জানতেন না,
এখন সে কোথায় আছে,কেমন আছে?
আজ জিজ্ঞেস করেছিলাম কেমন আছেন?
ওপার থেকে কাপা কন্ঠে বলে উঠলো
ভালো নেই,আমি ভালো নেই।
প্রায় শয্যাশায়ী, অনেক জ্বর।
হয়তো চিকুনগুনিয়া,চোখের সমস্যাটাও বেড়েছে।
আজ এসো না,একটু দোয়া করো।
নিজেকে নিয়ে ভয় লাগে
একা মানুষ তো, দেখার কেউ নেই।
যিনি গেয়েছেন যৌবনের গান
আজ তিনি রোগে শোকে একাকার;
কিছুক্ষণ চুপ করে রইলাম
আর এক গভীর দীর্ঘশ্বাস;
শুধু বললাম,ভয় নেই
একটা ফোন দিবেন,চলে আসবো।
আমরা প্রত্যেকেই যে যার মত একা
সেই সাথে মাঝেমাঝে  হয়ে যাই বোকা।
এই জগত সংসারের লেনদেন হঠাৎ হবে শেষ।
তবুও কাটবে না কৃতকর্মের রেষ।
স্বপ্ন দেখি,স্বপ্নে ঘুরি,স্বপ্নে হাড়াই,স্বপ্ন বুনি
এইতো আছি বেশ।
এক মানবীর কষ্ট এক জীবনে হবে না শেষ।
সিগারেটের আগুন নিভে যাবে,
আকাশের চাঁদের আলো নিভে গিয়ে সুয্যি মামা উকি দিবে
চা হয়ে যাবে ঠাণ্ডা,
অমর হয়ে থাকবে রবীন্দ্র, হেলাল হাফিজেরা।
পছন্দের আরো পোস্ট