জাহাঙ্গীরনগরে তেতাল্লিশের বন্ধুত্বের তিন বছর পূর্তি

২৮ শে এপ্রিল ২০১৪ , প্রায় দুই সহস্রাধিক শিক্ষার্থী সবেমাত্র স্কুল-কলেজের গন্ডি পেরিয়ে উচ্চ শিক্ষার উদ্দেশ্যে নৈসর্গিক লীলাভূমিক্ষ্যাত জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ৭০০ একর সবুজ ক্যাম্পাসে পদার্পন। সবুজ অরণ্যে ভরা এ ক্যাম্পাসটিতে ২০১৪ সালের এইদিনে একঝাক তরুণ শিক্ষার্থী বিশ্ববিদ্যালয়ে আনুষ্ঠানিক পথচলা শুরু করে। সেই থেকে তারা ৪৩ তম আবর্তন হিসেবে পরিচিত। এরপর থেকে এ দিনটিকে ‘৪৩ তম আবর্তনের বর্ষপূর্তি দিবস’ হিসেবে পালন করে আসছে শিক্ষার্থীরা।
ক্যাম্পাসে ভর্তি হওয়ার পর প্রতিবছরের ন্যায় এবারও বর্ণিল নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে দিবসটিকে পালন করেছে ৪৩ তম আবর্তনের প্রায় দুই সহ¯্রাধিক শিক্ষার্থী।
বিভিন্ন বিভাগ ও হলের ৪৩ তম আবর্তনের শিক্ষার্থীরা কেক কেটে দিনটিকে উদযাপন করে। কেক কাটার পর বিভিন্ন বিভাগ ও হলের শিক্ষার্থীরা র‌্যালি নিয়ে ব্যান্ড বাজিয়ে রং মেখে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন স্থান প্রদক্ষিণ করে। ক্যাম্পাসজুড়ে দিনভর ছিলো অন্যরকম এক উৎসবের আমেজ।দিনব্যাপী নিজেদের ফেইসবুকের টাইমলাইনেও ব্যক্ত করতে থাকে বন্ধত্বের প্রতি তাদের আবেগ অনুভূতি ও ভালোবাসার কথা।

নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগের শিক্ষার্থী অর্থী তন্নি ফেসবুক টাইমলাইনে লিখেছেন, ‘তেতাল্লিশ, এখন কোন একটা সাধারন সংখ্যা নয়। এটি আজীবনকার পরিচয়। অস্তিত্ব। ভালোলাগা, মন্দলাগা, অর্জন, সবকিছুই।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের একই আবর্তনের সাথে অধ্যয়নরত আছেন জাতীয় নারী ক্রিকেট দলের ওপেনার শারমিন আক্তার সুপ্তা ও মীরাক্কেলের কমেডি পারফর্মার এমদাদুল হক হৃদয়। ক্যাম্পাস লাইফের বন্ধুত্বের তিন বছর পূর্তিতে তারাও প্রকাশ করার চেষ্টা করেছেন বন্ধুত্বের প্রতি তাদের অব্যক্ত ভালোবাসাগুলো।

শারমিন আক্তার সুপ্তা বলেন, ‘তারুণ্যের উচ্ছলতায় বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে যে বন্ধুত্ব গড়ে ওঠে তা থেকে যায় সারাজীবন। হয়ত জীবনের নিয়মেই যোগাযোগ কমে যায় কিন্তু থেকে যায় বন্ধুত্বের অটুট বন্ধন।’

এমদাদুল হক হৃদয় বলেন, ‘স্কুল আর কলেজ জীবনের বন্ধুত্ব পেরিয়ে একসময় জীবনে আসে বিশ্ববিদ্যালয় জীবনের বন্ধুরা। ক্যাম্পাস জীবনের পরেও হয়তো বন্ধুত্ব হয় এবং ভালো বন্ধুত্বই হয়। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয় সহপাঠীদের সাথে যে বন্ধুত্বের আবেদনটা চিরকালই কিন্তু একটু অন্য রকম রয়ে যায় মনের মাঝে।’

দেশ স্বাধীন হওয়ার সাথে সাথে শুরু হয় জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম। স্বাধীন বাংলাদেশের সমবয়সী এই বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিটি ব্যাচের সাথে স্বাধীনতা দিবসের রয়েছে এক অবিচ্ছেদ্য সম্পর্ক। স্বাধীনতার ৪৩ বছর পদার্পণের সময় ব্যাচটির আগমন হওয়ায় ৪৩তম আবর্তন হিসেবে পরিচিত লাভ করে তারা।
#

পছন্দের আরো পোস্ট