ইউজিসিতে হায়ার এডুকেশন ইন বাংলাদেশ শীর্ষক কর্মশালা

‘ড্রাফট স্ট্রাটেজিক প্লান ফর হায়ার এডুকেশন ইন বাংলাদেশ’ শীর্ষক দিনব্যাপী এক কর্মশালা আজ (১৫মার্চ) বুধবার ইউজিসি অডিটরিয়ামে অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন প্রফেসর আবদুল মান্নান, চেয়ারম্যান, ইউজিসি। জনাব মহিউদ্দিন খান, অতিরিক্ত সচিব, শিক্ষা মন্ত্রণালয় অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন। অনুষ্ঠানে ড. গৌরাঙ্গ চন্দ্র মোহন্ত, এনডিসি, প্রকল্প পরিচালক (অতিরিক্ত সচিব), উচ্চশিক্ষা মানোন্নয়ন প্রকল্প স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন।

অনুষ্ঠানে প্রফেসর ড. সৈয়দ মঞ্জুরুল ইসলাম, জাতীয় পরামর্শক, উচ্চশিক্ষা মানোন্নয়ন প্রকল্প, স্ট্রাটেজিক প্লান ফর হায়ার এডুকেশন ইন বাংলাদেশ ২০১৭-২০৩০ এর উপর খসড়া প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন। এর পূর্বে শিক্ষা মন্ত্রণালয় বাংলাদেশের বিশ্ববিদ্যালয়সমূহের জন্য উচ্চশিক্ষা ও গবেষণার কৌশলগত পরিকল্পনা বিষয়ে ছয়টি বিশেষজ্ঞ কমিটি গঠন করে।

এছাড়া প্রফেসর ড. সৈয়দ রাশেদুল হাসান, সাবেক ট্রেজারার, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অনুষ্ঠানে ‘র‌্যাশনালাইজেশন অব স্টুডেন্ট ফিস ইন পাবলিক ইউনিভার্সিটি’, জনাব ফারুক মইনুদ্দিন, অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক, সিটি ব্যাংক, ঢাকা ‘স্টুডেন্ট লোন প্রোগ্রাম ফর পাবলিক এন্ড প্রাইভেট ইউনিভার্সিটিজ ইন বাংলাদেশ’’ এবং ড. মোঃ শামসুল আরেফিন খান মামুন, রিসার্চ অফিসার, উচ্চশিক্ষা মানোন্নয়ন প্রকল্প ‘স্টুডেন্ট লোন প্রোগ্রাম ইন বাংলাদেশ এন্ড আদার কান্ট্রিজ’-এর উপর পৃথক পৃথক প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ।

Post MIddle

ছয়টি পাবলিক এবং চারটি প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের মনোনীত শিক্ষার্থী এবং তাদের অভিভাবকগণ কর্মশালায় অংশগ্রহণ করে। অধিকাংশ শিক্ষার্থী তাদের অভিভাকের আয়ের ভিত্তিতে ছাত্র-ছাত্রীদের সকল রকমের ফি যৌক্তিকীকরণের প্রস্তাবে সম্মতি প্রদান করে। এছাড়া তারা স্টুডেন্ট লোন প্রগ্রামকে কনজুমার লোন হিসেবে না নিয়ে বিনিয়োগ লোন হিসেবে চালু করার প্রস্তাবের বিষয়ে একমত পোষণ করেন। প্রফেসর মঞ্জুরুল ইসলাম বলেন যে, শিক্ষার্থী এবং তাদের অভিভাবকদের মূল্যবান মতামত/ প্রস্তাব স্ট্রাটেজিক প্লানে প্রতিফলিত হবে বলে শিক্ষার্থীদের আশ্বাস প্রদান করেন।

সভাপতির ভাষণে ইউজিসি চেয়ারম্যান বলেন যে, দেশের পাবলিক ও প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য স্ট্রাটেজিক প্লানের উপর বিশেষজ্ঞ কমিটি কর্তৃক প্রণীত রিপোর্ট দেশের উচ্চশিক্ষা ও গবেষণার মানোন্নয়নের জন্য গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের জন্য তিনি সাধারণ শিক্ষার পাশাপাশি কারিগরী শিক্ষার উপর গুরুত্বারোপ করেন। তিনি আরও বলেন যে, সাম্প্রতিক বছরগুলোতে বাংলাদেশে উচ্চশিক্ষায় বিপ্লব সাধিত হয়েছে। বর্তমানে দেশে উচ্চশিক্ষায় ৩.২ মিলিয়ন শিক্ষার্থী অধ্যয়ন করছে, যা ২০২৬ সালের মধ্যে ৪.১ মিলিয়নে উন্নীত হবে আশা করা যাচ্ছে।

প্রফেসর ড. মোহাম্মদ ইউসুফ আলী মোল্লা, সদস্য, ইউজিসি, প্রফেসর ড. দিল আফরোজা বেগম, সদস্য, ইউজিসি, প্রফেসর ড. মোঃ আখতার হোসেন, সদস্য, ইউজিসি, বিভিন্ন ব্যাংকের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ, ইউজিসি ও উচ্চশিক্ষা মানোন্নয়ন প্রকল্পের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ এবং বিভিন্ন বিশ^বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকবৃন্দ, অন্যান্যের মধ্যে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

পছন্দের আরো পোস্ট