সাদার্নে আইন বিভাগের কর্মশালা

law-iqac2016সাদার্ন ইউনিভার্সিটির আইন বিভাগের উদ্যোগে বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন পরিচালিত হাইয়ার এডুকেশন কোয়ালিটি এনহেনসমেন্ট প্রজেক্টের (হেকেপ) ইনস্টিটিউশনাল কোয়ালিটি এসিউরেন্স সেলের আওতায় উচ্চশিক্ষার গুণগত মান বৃদ্ধির লক্ষ্যে দিনব্যাপী “শেয়ারিং দি সার্ভে আউটকাম অ্যান্ড এনালাইসিস শীর্ষক কর্মশালা সম্প্রতি ইউনিভার্সিটির কনফারেন্স রুমে অনুষ্ঠিত হয়।

শিক্ষকদের পাঠদান পদ্ধতিকে আরও যুগোপযোগী ও বিশ্বমানের করতে এ কর্মশালার আয়োজন করা হয়। এতে প্রশিক্ষক ছিলেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের(চবি) ফিন্যান্স অ্যান্ড ব্যাংকিং বিভাগের শিক্ষক প্রফেসর ড. মোহাম্মদ সালেহ জহুর ও চবির আইন বিভাগের ডিন প্রফেসর ড. আবদুল্লাহ আল ফারুক।

আইন বিভাগের উপদেষ্টা প্রফেসর মহিউদ্দিন খালেদের সভাপতিত্বে আয়োজিত কর্মশালায় প্রধান অতিথি ছিলেন উপাচার্য প্রফেসর ড. মো. নুরুল মোস্তফা । আরও উপস্থিত ছিলেন সাদার্ন ইউনিভার্সটির প্রতিষ্ঠাতা ও উদ্যোক্তা সরওয়ার জাহান, প্রো-ভিসি প্রফেসর ইঞ্জিনিয়ার এম আলী আশরাফ, সাদার্ন ইউনিভার্সটির আইকিউএসি’র পরিচালক প্রফেসর এ.জে.এম নুরুদ্দীন চৌধুরী, রেজিস্ট্রার ড. মনতাজুল ইসলাম চৌধুরী, ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগের প্রধান ড. ইসরাত জাহান, সেল্ফ এসেসমেন্ট কমিটির সদস্যবৃন্দসহ আইন বিভাগের সকল শিক্ষক।

উপাচার্য প্রফেসর ড. মো. নুরুল মোস্তফা বলেন, হেকেপ প্রজেক্টকে সফল করতে হলে আমাদেরকে শিক্ষার গুণগত মান নিশ্চিত করতে হবে। গবেষণার ও অধ্যায়নের মাধ্যমে যুগোপযোগী পাঠদান পদ্ধতি দ্বারা শিক্ষার্থীদেরকে আন্তর্জাতিক মানদন্ডে গড়ে তুলতে হবে। প্রতিযোগিতায় টিকে থাকতে হলে অবশ্যই বিশ্বমানের শিক্ষা অর্জন করতে হবে।

প্রতিষ্ঠাতা ও উদ্যোক্তা সরওয়ার জাহান বলেন, তথ্য আদান প্রদানের মাধ্যমে জ্ঞানের বিস্তৃতি ঘটে। নতুন নতুন বিষয়ে জানতে হলে প্রত্যেকের উচিৎ একে অপরের সাথে বেশি বেশি নলেজ শেয়ার করা। যোগাযোগের মাধ্যমের অর্জিত জ্ঞানকে ছড়িয়ে দিতে হবে।

কর্মশালায় সার্ভে থেকে প্রাপ্ত ফলাফলের ভিত্তিতে তথ্য উপস্থাপন করেন আইন বিভাগের শিক্ষবৃন্দ। পরে কর্মশালায় অংশ নেওয়া শিক্ষকদের হাতে সনদপত্র তুলে দেন আমন্ত্রিত অতিথিরা।

পছন্দের আরো পোস্ট