জাবি সংলগ্ন ঢাকা-আরিচা মহাসড়ক অবরোধ

unnamed-8ব্রাক্ষণবাড়িয়া, হবিগঞ্জসহ দেশের অন্যান্য অঞ্চলে সাম্প্রদায়িক হামলার প্রতিবাদে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন ঢাকা-আরিচা মহাসড়ক অবরোধ করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের সচেতন শিক্ষার্থীবৃন্দের ব্যানারে সনাতন ধর্মাবলম্বী শিক্ষার্থীরা।বুধবার (২ নভেম্বর) বিকাল সাড়ে তিনটা থেকে চারটা ৪৫ মিনিট পর্যন্ত এ অবরোধ কর্মসূচি পালন করে তারা। এতে ঢাকা-আরিচা মহাসড়ক তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়।

জানা যায়, ৩০ অক্টোবর ধর্ম অবমাননার গুজব ছড়িয়ে ব্রাক্ষণবাড়িয়ার নাসিরনগর, হবিগঞ্জের মাধবপুরে এবং সুনামগঞ্জের ছাতকে হিন্দু সম্প্রদায়ের উপর উগ্রসাম্প্রদায়িক, মৌলবাদী গোষ্ঠীর অমানবিক নির্যাতন, মন্দির, প্রতিমা এবং বাড়িঘর ভাংচুর ও লুটের ঘটনা ঘটে। ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগে ভস্মীভূত হয় প্রায় তিন’শ হিন্দু ঘরবাড়ি। এখন পর্যন্ত প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোন প্রকার কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়নি।

এ নেক্কারজনক হামলার প্রতিবাদে বিকাল তিনটার বিশ্ববিদ্যালয় অমর একুশের পাদদেশে সচেতন শিক্ষার্থীবৃন্দ ব্যানারে সনাতন ধর্মাবলম্বী শিক্ষার্থীরা মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে। পরে মিছিল নিয়ে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন ঢাকা-আরিচা মহাসড়ক অবরোধ করে।

Post MIddle

মহাসড়কে প্রতিকী লাশ রেখে অবরোধ করে বিভিন্ন স্লোগান দিয়ে এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানান এবং দ্রুত এর বিচার দাবি করেন তারা।পরে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের আশ্বাসে ভিত্তিতে তারা অবরোধ কর্মসূচি উঠিয়ে নেন।

এ বিষয়ে সনাতন বিদ্যাথী সংসদ জাবি শাখার সভাপতি রবিন কর্মকার বলেন, আমরা প্রশাসনের আশ্বাসের ভিত্তিতে আমাদের কর্মসূটি স্থগিত করেছি। আগামীকাল (বৃহস্পতিবার) বিশ্ববিদ্যালয়ে উপাচার্যের সঙ্গে দেখা করে উপাচার্যের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর কাছে লিখিতভাবে এ ঘটনার বিচার দাবি করবো। এক সপ্তাহের মধ্যে যদি আমাদের মানা না হয় তাহলে আরো কঠোর কর্মসূচি দেওয়া হবে।

সাভার সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার নাজমুল হাসান ফিরোজ বলেন, এ বিষয় নিয়ে সরকার আন্তরিক। কিন্তু এভাবে প্রতিবাদ করে জনগণকে কষ্ঠ দেওয়ার কোন মানে হয়না। আমরা রাস্তা ক্লিয়ার করে দিয়েছি। স্বাভাবিক যাতযাত শুরু হয়েছে।

পছন্দের আরো পোস্ট