যাঁদের জন্য গর্ব করতে পারে বাংলাদেশ

13731571_919277321534956_8108551283790581920_nসীমান্ত জেলা পঞ্চগড়ে বাড়ি৷ তাই ছেলের জন্মের পর বাবা ছেলের নাম দিলেন সীমান্ত৷ বাবার বদলির চাকরি৷ সব মিলিয়ে ১৩টি স্কুলে পড়েছেন৷ আর কলেজ চারটি৷ এখন পড়ছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনস্টিটিউট অফ বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশনে (আইবিএ)৷ স্কুলে থাকতেই মাথায় ঢুকেছিল বিতর্কের পোকা৷ বিশ্ববিদ্যালয়ে এসে সেটাতে আরও শানিত হলো৷ ক্যাম্পাসে পা রেখেই যোগ দিলেন জাহাঙ্গীরনগর ইউনিভার্সিটি ডিবেট অর্গানাইজেশনে৷ তর্ক-বিতর্কের যোগ্যতা বাড়তে লাগল৷ এলো একের এর এক সাফল্য৷ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় বিতর্ক সংগঠন আয়োজিত ইংরেজি পাবলিক স্পিকিং চ্যাম্পিয়ন তাঁর সাফল্যের টুপিতে প্রথম পালক৷ ইংরেজি দক্ষতার দৌলতে পর পর কয়েকবছর ছিলেন বিদেশের মাটিতে অনুষ্ঠিত নামকরা বিতর্কানুষ্ঠানের বিচারক৷

 

২০১২ সালে ইংল্যান্ডে অনুষ্ঠিত অক্সফোর্ড ইন্টারভার্সিটি ডিবেট চ্যাম্পিয়নশিপে ছিলেন বিচারক৷ আর পরের বছর ক্যামব্রিজ ইউনিভার্সিটি ডিবেট চ্যাম্পিয়নশিপে৷ এ বছর অংশ নিয়েছেন এশিয়া ডিবেট একাডেমি আয়োজিত বিতর্ক কর্মশালায়৷ সেখানেও বিভিন্ন দেশের ২০ বিতার্কিকের মধ্যে হয়েছেন শ্রেষ্ঠ বক্তা৷ ২২ বছরের এই তরুণ তাঁর চেহারার জন্য অনেকের কাছ থেকে বিরূপ প্রতিক্রিয়া পেয়েছিলেন৷ জীবনের এক পর্যায়ে পরিবারের সঙ্গে সম্পর্ক ছেদ হয়েছিল শিক্ষার কারণেই৷ তবে এখন বিতর্কের এই ভূতটাকে আরো উসকে দিচ্ছেন পরিবারই৷ অর্থ যোগান এবং নৈতিক সমর্থন পুরোটাই পাচ্ছেন তিনি৷

ভারত, চীন, মালয়েশিয়া, ব্রিটেনে গিয়ে বক্তৃতা দিয়েছেন মাশাহেদ হাসান৷ তাঁর মূল উদ্দেশ্য তরুণ প্রজন্মকে অনুপ্রাণিত করা, বিশেষ করে যারা হতাশাগ্রস্ত৷ তিনি তাঁর বক্তব্যের মাধ্যমে নিজের দর্শন দিয়ে মানুষের নেতাবাচক চিন্তা-ভাবনাগুলো দূর করার চেষ্টা করছেন৷ কেরিয়ার ডেভেলপমেন্ট, এডুকেশন কাউন্সেলিং-এ বিষয়গুলোতেও বক্তব্য দেন তিনি৷ গত চার বছরে ৭০টি ‘মোটিভেশনাল সেশন’ করেছেন তিনি৷ ১৫ হাজার মানুষকে প্রশিক্ষণ দিয়েছেন৷ আর এভাবেই ভবিষ্যতে মানুষকে ভালো কাজে অনুপ্রাণিত করে যেতে চান সীমান্ত৷

 

 0,,19427881_401,00

পছন্দের আরো পোস্ট