কমনওয়েলথ স্কলারশীপ নিয়ে যুক্তরাজ্যে উচ্চশিক্ষা

commonwealthমাস্টার্স ও পিএইচডি গবেষণার জন্য কমনওয়েলথভুক্ত উন্নয়নশীল দেশের শিক্ষার্থীদেরকে স্কলারশীপ দেয়া হবে। এ জন্য আগ্রহী শিক্ষার্থীদের থেকে আবেদন আহবান করা হয়েছে। যুক্তরাজ্যের ডিপার্টমেন্ট ফর ইন্টারন্যাশনাল ডেভেলপমেন্ট (ডিএফআইডি) এর অর্থায়নে যুক্তরাজ্যের প্রথমসারির বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে পড়ার জন্য এ স্কলারশীপ দেয়া হবে। আগ্রহী শিক্ষার্থীদেরকে ১৫ সেপ্টেম্বর তারিখের মধ্যে ‘বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জরী কমিশন, আগারগাঁও, শেরে বাংলা নগর, ঢাকা-১২০৭’ ঠিকানায় আবেদন করতে হবে। আবেদনপত্র কমিশনের আইসিসি শাখায় জমা দিতে হবে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। আবেদন পত্রের জন্য এখানে ক্লিক করুন অথবা শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইট ভিজিট করুন।

পরিচিতি

কমনওয়েলথ স্কলারশীপ বিশ্বের সবচেয়ে মর্যাদাপূর্ণ স্কলারশীপ বলে মনে করা হয়। পর্যাপ্ত আর্থিক সহায়তা ও অন্যান্য সুযোগ সুবিধার জন্য এ স্কলারশীপ শিক্ষার্থীদের পছন্দের শীর্ষে। কমনওয়েলথভুক্ত দেশগুলোর শিক্ষার্থীদের মধ্যে সাংস্কৃতিক আদান-প্রদানের লক্ষে ১৯৫৯ সাল থেকে কমনওয়েলথ স্কলারশীপ দেয়া হয়।  এখন পর্যন্ত বিভিন্ন দেশের ৩৪ হাজার শিক্ষার্থীকে এ স্কলারশীপ দেয়া হয়েছে।

কোর্স লেভেল

মাস্টার্স ও পিএইচডি গবেষণার জন্য এ স্কলারশীপ দেয়া হবে।

বিষয়

শিক্ষার্থী নিজের যোগ্যতা ও পছন্দ অনুযায়ী যে কোন বিষয়ে পড়তে পারবে।

আর্থিক সহায়তা

  • রাউন্ড ট্রিপ এয়ার টিকেট।
  • সকল টিউশন ফি ও পরীক্ষা ফি।
  • মাসিক ১০৪৩ ব্রিটিশ পাউন্ড আবাসন ভাতা। লন্ডন মেট্রোপলিটন এলাকার বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর জন্য মাসিক ১২৭৯ ব্রিটিশ পাউন্ড।
  • অভ্যন্তরীন যাতায়াত ভাতা
  • পিএইচডি গবেষকদের জন্য ফিল্ড ওয়ার্ক করার জন্য যাবতীয় খরচ।
  • পিএইচডি গবেষকদের জন্য নিজ দেশে আসার জন্য মধ্যবর্তী টিকেট
  • বিবাহিত শিক্ষার্থীদের স্ত্রীর জন্য ২২৪ পাউন্ড ও সন্তানের জন্য ২২৪ পাউন্ড ভাতা দেয়া হবে।

যোগ্যতা

  • আগ্রহী শিক্ষার্থীকে কমনওয়েলথভুক্ত দেশের নাগরিক হতে হবে।
  • উন্নয়নশীল দেশের নাগরিক হতে হবে।
  • একাডেমিক রেজাল্ট ন্যুনতম দ্বিতীয় বিভাগ থাকতে হবে।
  • এছাড়া অন্যান্য সাধারণ যোগ্যতা

স্কলারশীপ সংক্রান্ত আরো বিস্তারিত তথ্যের জন্য এখানে ক্লিক করুন।

Common-Wealth

 

পছন্দের আরো পোস্ট