ড্যাফোডিলে জঙ্গিবাদ বিরোধী মতবিনিময় সভা

শিক্ষার্থীদের মাঝে জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদ বিরোধী সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে বাংলাদেশ পুলিশ ও ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির যৌথ উদ্যোগে মঙ্গলবার (২৩ আগস্ট) বিশ্ববিদ্যালয় মিলনায়তনে এক “জঙ্গিবাদ বিরোধী মতবিনিময় সভা” অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মেট্রোপলিটান পুলিশের তেজগাঁও বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার বিপ্লব কুমার সরকার।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. ইউসুফ মাহাবুবুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার হামিদুল হক খান, রেজিস্ট্রার প্রফেসর ড. প্রকৌশলী এ কে এম ফজলুল হক, পরিচালক (প্রশাসন) মোঃ ইমরান হোসেন ও ঢাকা মেট্রোপলিটান পুলিশের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (তেজগাঁও জোন) মুহাম্মদ হাবিবুন নবি আনিছুর রশিদ, সহকারি পুলিশ কমিশনার কমিশনার (তেজগাঁও জোন) সাত্যকি কবিরাজ ঝুলন ও শেরেবাংলানগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জি জি বিশ্বাস।

অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন পরিচালক (স্টুডেন্ট এফেয়ার্স) সৈয়দ মিজানুর রহমান। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের উদ্যোগে ও ডাইরেক্টরেট অব স্টুডেন্ট এফেয়ার্সের (ডিএসএ) সহযোগিতায় আয়োজিত এ মতবিনিময় সভায় সাধারন শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি বিভিন্ন ক্লাবের সদস্যরাও অংশ গ্রহণ করে।

মূখ্য আলোচকের বক্তৃতায় ঢাকা মেট্রোপলিটান পুলিশের তেজগাঁও জোনের উপ-পুলিশ কমিশনার বিপ্লব কুমার সরকার বলেন, জঙ্গিবাদকে সমূলে উৎপাটন করতে বাংলাদেশ পুলিশই যথেষ্ট, তবে এ ক্ষেত্রে জনগনের সহযোগীতাও অপরিহার্য। বাংলাদেশ পুলিশের ১,৭০,০০০ সদস্য দেশবাসীকে সাথে নিয়ে এক সাথে কাঁধে কাধ মিলিয়ে কাজ করলে দেশ থেকে জঙ্গিবাদও সন্ত্রাসবাদ নির্মূল হতে বাধ্য।

তিনি আরো বলেন, পুলিশের মধ্যে ও কিছু কিছু খারাপ লোক আছে যাদের কারনে পুলিশের ভাবমূর্তি নষ্ট হচ্ছে এবং বাংলাদেশ পুলিশই একমাত্র সংগঠন যারা এ বিষয়টিকে স্বীকার করে ইতিমধ্যে শুদ্ধি অভিযান শুরু করেছে এবং প্রতিনিয়ত চেষ্টা করে যাচ্ছে নিজেদের পরিবর্তন করতে, সংশোধন করতে এবং যারা ভালো তাদের পদোন্নতি দান করতে ও সংবর্ধিত করতে।

তরুনদের মেসে হয়রানি বিষয়ক এক প্রশ্নের উত্তরে শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে উপ-পুলিশ কমিশনার বিপ্লব কুমার সরকার বলেন, মেট্রোপিলটন পুলিশের পক্ষ থেকে শুধুমাত্র ভাড়াটিয়াদের ঠিকানা ও পরিচয় নিশ্চিত হওয়ার মত প্রয়োজনী তথ্য বাড়িওয়ালাদের সংগ্রহে রাখার কথা বলা হয়েছে। এর দোহাই দিয়ে কোন বাড়িওয়ালা যদি বাসা ভাড়া বাড়ানো বা ব্যাচেলরদের যৌক্তিক কারণ ছাড়া বাসা ছাড়তে বাধ্য করে বা হয়রানি করে তাহলে তিনি সরাসরি তার নাম্বারে অথবা অন্যান্য কর্মকর্তাদের নাম্বারে বা মেট্রোপলিটান পুলিশকে অবহিত করতে অনুরোধ করেন এবং এ ক্ষেত্রে সর্বাত্মক সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, জান্নাতের স্বপ্নে বিভোর হয়ে জান্নাতের সংক্ষিপ্ত পথ হিসেবে যারা জঙ্গিবাদকে বেছে নিচ্ছে তাদের শেষ পরিনতি বেওয়ারিশ লাশ যা বাবা মা চোখের সামনে থেকেও গ্রহণ করতে অস্বীকৃতি জানায়। শুধু তাই নয়, লজ্জায় তারা সমাজে মুখও দেখাতে পারে না।

তিনি বলেন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছাত্র-শিক্ষকরাই সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ দমন করবে এবং আইন শৃংখলারক্ষাকারি বাহিনী শুধু নিয়ামকের ভূমিকা পালন করবে। অভিভাবকদের খেয়াল রাখতে হবে যেন তাদের সন্তানরা বিপথে চলে না যায়। তিনি শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের আরও বেশী সচেতন ও বন্ধুসুলভ হওয়ার পরামর্শ দেন। সহপাঠীদেরকেও নিজেদের মধ্যে ভ্রাতৃত্ব ও পারস্পরিক সহযোগীতা বজায় রেখে সচেতনভাবে জঙ্গিবাদ মোকাবেলায় এগিয়ে আসতে এবং কোন সহপাঠী যেন এসব ঘৃনিত কর্মকান্ডে জড়াতে না পারে সেদিকে সজাগ দৃষ্টি রাখার আহ্বান জানান।

সভাপতির বক্তব্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. ইউসুফ মাহাবুবুল ইসলাম বলেন, ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি শুরু থেকেই জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে বলিষ্ঠ ভূমিকা রেখে আসছে এবং জঙ্গিবাদ দমনে সরকার আইনপ্রয়োগকারি সংস্থাসহ সংশ্লিষ্ট সবার সঙ্গে সহযোগিতার পাশাপাশি যা যা করা সম্ভব প্রয়োজনে তাই করবে। ##

পছন্দের আরো পোস্ট