ইবিতে আইকিউএসি’র কর্মশালা

IU-2ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে আইকিউএসি (ইনিষ্টিটিউশনাল কোয়ালিটি এ্যসুরেন্স সেল)’র উদ্যোগে ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারী, প্রাক্তন শিক্ষার্থী এবং বিভিন্ন ব্যাচের ১ম ও ২য় স্থান অধিকারী শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে আত্মমূল্যায়ণ ও সচেতনতা সৃষ্টি শীর্ষক এক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়।

আজ মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টায় ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগে এ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। কর্মশালায় প্রথম সেশনের আলোচনাসভায় সভাপতিত্ব করেন এসএ কমিটির প্রধান ও বিভাগীয় সভাপতি প্রফেসর ড. মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেন। কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় উপাচার্য ও আইকিউএসি’র পরিচালক প্রফেসর ড. মোঃ হারুন-উর-রশিদ আসকারী বলেন, যদি আমরা শিক্ষার গুণগতমান উন্নত করতে চাই তাহলে আমাদের আত্ম-মূল্যায়ণ করতে হবে।

তিনি বলেন, বর্তমান সরকার কর্তৃক ঘোষিত ভিশন ২০২১ এর একটি অন্যতম লক্ষ্য হচ্ছে শিক্ষার গুণগতমান নিশ্চিত করা এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বুদ্ধিবৃত্তিক উৎকর্ষতা বাড়ানো। এই মহতী কার্যক্রম গ্রহণ করায় তিনি প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনাকে বিশেষভাবে ধন্যবাদ জানান। তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভাগসমূহে বিদ্যমান সেশনজট দূরীকরণের ক্ষেত্রে ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগ এগিয়ে থাকবে বলে।

বিশেষ অতিথি প্রো ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ শাহিনুর রহমান বলেন, শিক্ষার মান উন্নয়নের জন্য শিক্ষক এবং শিক্ষার্থী উভয়কেই লক্ষ্য নির্ধারণ করতে হবে। সে-লক্ষ্যে পৌঁছার জন্য যে উপকরণগুলো ব্যবহার করা প্রয়োজন সেগুলো আন্তরিকতার সাথে ব্যবহার করতে হবে।

তিনি বলেন, আত্ম-মূল্যায়ন (সেল্ফ এ্যাসেসমেন্ট) ব্যতিরেকে, লক্ষ্যে পৌঁছুতে কোন ধরণের সমস্যার সম্মুখীন হতে হচ্ছে সেগুলো চিহ্নিত করা না গেলে শিক্ষার মান উন্নয়ন সম্ভব নয় এবং এটি শিক্ষক ও শিক্ষার্থী উভয়ের জন্যই প্রযোজ্য। এ প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়েই কোয়ালিটি এডুকেশন নিশ্চিত করা সম্ভব।

অপর বিশেষ অতিথি ট্রেজারার প্রফেসর ড. মোঃ সেলিম তোহা বলেন, এই কর্মশালা আমাদের স্মরণীয় হয়ে থাকবে। উপাচার্যও ট্রেজারার হিসেবে এটাই হচ্ছে আমাদের কোন অনুষ্ঠানে প্রথম অংশগ্রহণ। তিনি বলেন, অনেক বছর আগেও শিক্ষার উন্নয়নে উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছিল। ড. মোঃ শহীদুল্লাহ্ বলেছিলেন, শিক্ষিত ও শিক্ষারমান এক কথা নয়। তিনি বলেছিলেন শিক্ষার্থীরা ফেল করবে কি কারণে।

আজকের এই কর্মশালা থেকে আমাদেরকে সেই ব্রত নিয়ে এগিয়ে যেতে হবে। সভায় রিসোর্স পার্সন ছিলেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের মার্কেটিং বিভাগের শিক্ষক প্রফেসর ড. এস এম কবির। ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. আব্দুল গফুর গাজী’র পরিচালনায় কর্মশালায় অন্যান্যদের মধ্যে আলোচনা করেন বিভাগের সিনিয়র শিক্ষক প্রফেসর ড. মোঃ রুহুল কে এম সালেহ ও প্রফেসর ড. মোঃ এমতাজ হোসেন।

আলোচনাসভা শেষে ২য় সেশনে রিসোর্স পার্সন প্রফেসর ড. এস এম কবির কর্মশালায় বিভিন্ন বিষয়ের উপর বিস্তারিত আলোচনা করেন।

পছন্দের আরো পোস্ট