ইবিতে জাতীয় শোক দিবস পালিত

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪১তম শাহাদাতবার্ষিকী ও ১৫ আগস্ট জাতীয় শোকদিবস ২০১৬ যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হয়েছে। দিনটি পালন উপলক্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে ব্যাপক কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়।

কর্মসূচি অনুযায়ী আজ ১৫ আগস্ট সকাল সাড়ে ৯টায় প্রশাসন চত্বরে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করে অর্ধনমিত করেন বীর মুক্তিযোদ্ধার সন্তান প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ শাহিনুর রহমান এবং কালো পতাকা উত্তোলন করেন ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার এস এম আব্দুল লতিফ। এসময় অনুরূপভাবে বিশ্ববিদ্যালয়ের ৭টি হলে পতাকা উত্তোলন করেন স্ব-স্ব হলের প্রভোস্টগণ।

পতাকা উত্তোলন শেষে জাতির পিতার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে ১ মিনিট নিরবতা পালন এবং তাঁর আত্মার শান্তি কামনায় দোয়া ও মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়। সকাল ৯.৪৫ মিনিটে প্রশাসন ভবনের সামনের চত্বর হতে প্রো-ভাইস চ্যান্সেলরের নেতৃত্বে ডিনবৃন্দ, রেজিস্ট্রারসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল পর্যায়ের শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারী, ছাত্র-ছাত্রী, বিএনসিসি ও রোভার স্কাউট এবং ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় ল্যাবরেটরী স্কুল এন্ড কলেজের শিক্ষক ও কোমলমতি শিক্ষার্থীদের সমন্বয়ে এক শোকর‌্যালি ক্যাম্পাসের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে প্রশাসন ভবন চত্বরে এসে শেষ হয়।

শোক র‌্যালি শেষে জাতির পিতাসহ ১৫ আগস্টের সকল শহীদের বিদেহী আত্মার শান্তির উদ্দেশ্যে কেন্দ্রীয় মসজিদে পবিত্র কোরআন খতম ও দোয়া অনুষ্ঠিত হয়। বেলা ১১ টায় ছাত্র-শিক্ষক-সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে “বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কীর্তি” শীর্ষক আলোকচিত্র প্রদর্শিত হয়।

আলোকচিত্র প্রদর্শনীর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনকালে প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মোঃ শাহিনুর রহমান বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা এবং বর্তমানে সংঘটিত জঙ্গিবাদী কর্মকান্ড একই সুত্রে গাঁথা। তিনি বলেন, এই হত্যাকান্ডের মধ্যদিয়ে স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশকে পঙ্গু করে দেয়ার ঘৃণ্য অপচেষ্টা করেছিল স্বাধীনতা বিরোধীরা। বাংলাদেশ ছাত্রলীগসহ স্বাধীনতার স্বপক্ষের সকল শক্তিকে জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর আহবান জানান ড. শাহিনুর রহমান । বঙ্গবন্ধুসহ ১৫ আগস্টে সকল শহীদের আত্মার শান্তি কামনা করেন তিনি।#

পছন্দের আরো পোস্ট