জ্ঞান পার্টির সিন্ডিকেটঃ অসহায় শিক্ষার্থী ও অভিভাবক

edited pp copyউকিপিডিয়ার তথ্যমতে, শিক্ষা প্রক্রিয়ায় কোন ব্যক্তির অন্তর্নিহিত গুণাবলীর পূর্ণ বিকাশের জন্য উৎসাহ দেয়া হয় এবং সমাজের একজন উৎপাদনশীল সদস্য হিসেবে প্রতিষ্ঠালাভের জন্য যে সকল দক্ষতা প্রয়োজন সেগুলো অর্জনে সহায়তা করা হয়। সাধারণ অর্থে জ্ঞান বা দক্ষতা অর্জনই শিক্ষা। ব্যাপক অর্থে পদ্ধতিগতভাবে জ্ঞানলাভের প্রক্রিয়াকেই শিক্ষা বলে। তবে শিক্ষা হল সম্ভাবনার পরিপূর্ণ বিকাশ সাধনের অব্যাহত অনুশীলন। বাংলা শিক্ষা শব্দটি এসেছে ‍’শাস’ ধাতু থেকে। যার অর্থ শাসন করা বা উপদেশ দান করা। শিক্ষার ইংরেজি প্রতিশব্দ education এসেছে ল্যাটিন শব্দ educare বা educatum থেকে। যার অর্থ to lead out অর্থাৎ ভেতরের সম্ভাবনাকে বাইরে বের করে নিয়ে আসা বা বিকশিত করা।

সক্রেটিসের ভাষায় ‘শিক্ষা হল মিথ্যার অপনোদন ও সত্যের বিকাশ। এরিস্টটলের মতে ”সুস্থ দেহে সুস্থ মন তৈরি করাই হল শিক্ষা’’। রবীন্দ্রনাথের ভাষায় ‘শিক্ষা হল তাই যা আমাদের কেবল তথ্য পরিবেশনই করে না বিশ্বসত্তার সাথে সামঞ্জস্য রেখে আমাদের জীবনকে গড়ে তোলে’।

এ থেকে স্পষ্ট শিক্ষা কোন সাধারন বিষয় নয়। আর একটি আসাধারন বিষয়কে সাধারন, সাবলীল ভাবে যিনি তুলে ধরেন তিনি শিক্ষক। শিক্ষা যখন শিক্ষকের দ্বারা বানিজ্যিকরণ হয়ে যায়, তখন এরিস্টটল ও রবীন্দ্রনাথের এই উক্তিও শিক্ষার স্বরুপ বিশ্লেষনে ব্যার্থ হয়ে যায়। সাম্প্রতিক সময়ে কিছু আসাধু মানুষরুপি আমানুষ শিক্ষাকে পণ্য বানানোর উদ্দেশ্যে উঠে-পড়ে লেগেছে। এসব অমানুষদের চেনা কঠিন, কারণ তারা দেখতে মানুষের মতোই।

সমাজে অনেক ধরনের প্রতারক চক্র আছে। কেউ খাবারে কিছু মিশিয়ে কাউকে সর্বস্বান্ত করে। এদেরকে বলা হয় আজ্ঞান পার্টি। আবার কেউ অন্যের চোখে মলম ডোলে দিয়ে সব কিছু কেড়ে নেয়। এদের বলা হয় মলম পার্টি। কিন্তু যারা জ্ঞান ও শিক্ষা দেয়ার নামে প্রতারণার আশ্রয় নেয়, তাদের কি জ্ঞান পার্টি বলা যায়? এই জ্ঞান পার্টির জনবলই প্রাইভেট ও কোচিং বানিজ্যের সাথে জড়িত শিক্ষা ধ্বংসকারী অসাধু কিছু শিক্ষক। শুধু তাই নয়, এই প্রতারক চক্রকে শক্তিশালীকরনের লক্ষে তারা গড়ে তুলেছেন সিন্ডিকেট। এই সিন্ডিকেটের সদস্য  পাঁচ-ছয়জন, যারা পাঁচ-ছয়টি বিষয়ের শিক্ষক।

একজন কোমলমতি শিক্ষার্থী যদি এই চক্রের একজন শিক্ষকের কাছে প্রাইভেট পড়ার জন্য যায়, তাহলে তাকে যেকোনভাবে মগজ ধোলাই করে সিন্ডিকেটের বাঁকি শিক্ষকদের কাছে পড়তে বাধ্য করা হয়। এই মগজ ধোলাইয়ের শিকার শুধু শিক্ষার্থীই হয় না। অভিভাবকদের সাথেও একই প্রক্রিয়ায় প্রতারনা করা হয়। বিজ্ঞানের শিক্ষকরা বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই সিন্ডিকেট করেন অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের সাথে। কারণ এক প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীকে অন্য প্রতিষ্ঠানে বোর্ড পরীক্ষায় অংশগ্রহন করতে হয়।

বিজ্ঞান শিক্ষক সিন্ডিকেট চক্রের বড় হাতিয়ার ব্যবহারীক পরিক্ষার নম্বর। ব্যাবহারীক পরীক্ষায় ভালো নম্বর পাওয়ার আশায় কোমলমতি শিক্ষার্থীরা এসব প্রতারক চক্রের ফাঁদে পা দেয়। এভাবেই অভিভাবকদের কাছ থেকে লক্ষ লক্ষ টাকা ছিনিয়ে নিচ্ছে এই সিন্ডিকেট চক্র। স্বাভাবিক অর্থে, একজন শিক্ষক যদি তার বেতনের টাকায় পরিবারের ব্যায়ভার বহন করতে না পারেন, তখন তিনি প্রাইভেট পড়ান এবং শ্রেনিকক্ষে শিক্ষকের কাছ থেকে বোঝার অপূর্ণতা থাকলে শিক্ষার্থী প্রাইভেট পড়ে। কিন্তু এই চিত্র আজ বিচিত্র।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তির আগে থেকেই শুরু হয় শিক্ষার্থীর প্রাইভেট পড়া। প্রতিযোগীতার যুগ বলে কথা ! সমাজের সিন্ডিকেট শিক্ষকদের প্রতারণার কালো হাত থেকে শিক্ষার্থীদের রক্ষা করার কেউ নেই। এদের হাত অনেক লম্বা। যারা এসব সিন্ডিকেট, প্রাইভেট বানিজ্য প্রতিরোধ করবেন, তাদের সন্তানরাও যে সিন্ডিকেট শিক্ষকদের কাছে জিম্মি হয়ে আছে ! তাই নির্বোধের মতো প্রতিকার চাইবো না, অপলক দৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকা ছাড়া আর কোন উপায় আছে কি?

(লেখকঃ মোস্তাফিজুর রহমান শামীম, প্রভাষক, ইংরেজি বিভাগ, ভেড়ামারা কলেজ।)  

পছন্দের আরো পোস্ট