নিম্ন আয়ের মানুষের টেকসই আবাসন শীর্ষক গোলটেবিল

01গতকাল (৩১ জুলাই) রোববার বিকেলে বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি আরবান ল্যাব ও ডেইলি স্টার এর যৌথ উদ্যোগে ডেইলি স্টার মিলনায়তনে ‘শহরের নিম্ন আয়ের মানুষের টেকসই আবাসন’ শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে বক্তারা বলেন, নিম্ন আয়ের মানুষের জন্য বিশেষ করে গার্মেন্টস শিল্পের উদ্যোক্তাদের এ খাতের শ্রমিকদের জন্য স্বল্প খরচে টেকসই আবাসনের ব্যবস্থা করা উচিত। এর মাধ্যমে শ্রমিকদের উৎপাদন যেমন ক্ষমতা বৃদ্ধি পাবে, তেমনি উদ্যোক্তারা অর্থনৈতিকভাবে লাভবান হবেন।

 

গোলটেবিল বৈঠক সঞ্চালন করেন বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গর্ভনর ও ইস্ট-ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটির চেয়ারম্যান ড. মোহাম্মদ ফরাসউদ্দিন। ‘শহরের নিম্ন আয়ের মানুষের টেকসই আবাসন’ এর ওপর মুলপ্রবন্ধ উপস্থাপন করেন, নগর ও পরিবেশবিদ, বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটির বোর্ড অব ট্রাস্টিজ সদস্য স্থপতি ইকবাল হাবিব। স্বাগত বক্তব্য রাখেন, ডেইলি স্টার সম্পাদক জনাব মাহফুজ আনাম।

 

সূচনা বক্তব্যে ড. ফরাসউদ্দিন বলেন, শুধু গার্মেন্টস শিল্প নয়, সব খাতে শ্রমজীবী মানুষের উৎপাদনশীলতা যতই বাড়বে, সমাজ ও রাষ্ট্র ততই উন্নত হবে। গণতান্ত্রিক ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়নে নিম্ন আয়ের মানুষের জন্য সরকারের আবাসন ঋণ ভূমিকা রাখতে পারে। তিনি বলেন, নিম্ন আয়ের মানুষের জন্য যতগুলো প্রকল্প ইতোপূর্বে নেওয়া হয়েছে তার মধ্যে ‘সুর্বণ প্রাঙ্গন’ প্রকল্পটি অত্যন্ত আশাব্যঞ্জক।

 

বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গর্ভনর এস কে সূর চৌধুরী বলেন, ঢাকার সবচেয়ে বড় সমস্যা বস্তি। এসব বস্তিতে নিম্ন আয়ের মানুষ বিশেষ করে গার্মেন্টস শ্রমিকরা বসবাস করেন। স্বল্প আয়ের এসব মানুষের জন্য সরকারের গৃহঋণ সুবিধা এক্ষেত্রে ভূমিকা রাখবে। বিশ্বব্যাংকের পরামর্শে ইতোমধ্যে ঢাকার বস্তিগুলোকে শহরের অদূরে একটি নিদির্ষ্টস্থানে স্থানান্তরের চেষ্টা করা হচ্ছে। যাতে সব নাগরিক সুবিধা সেখানে বিদ্যমান থাকবে।

 

বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটির চেয়ারম্যান জামিল আজহার বলেন, বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটির আরবান ল্যাব ঢাকা শহরের মানুষের স্বাস্থ্য, নিরাপত্তা, টেকসই উন্নয়ন, প্রযুক্তি ও ডিজিটাল ঢাকা গড়ার লক্ষ্যে বিভিন্ন গবেষণার কাজ শুরু করেছে। ইতোমধ্যে ডিজিটাল ঢাকা গড়ার লক্ষ্যে বেশ কিছু গবেষণার কাজ শেষ করা হয়েছে। কারণ ঢাকা শহর মোট জিডিপির ৩৫ শতাংশ যোগান দিয়ে আসছে। এজন্য ঢাকা শহরকে গবেষণার প্রধান কেন্দ্র হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে।

 

Post MIddle

মোহাম্মদী গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক রুবানা হক বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের স্বল্প সুদের ঋণ সুবিধা নিয়ে মোহাম্মদী গ্রুপ ঢাকার অদূরে গাজীপুরে ১ দশমিক ৭ একর জমির উপর ‘সুবর্ণ প্রাঙ্গণ’ নামে একটি হাউজিং প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। সেখানে নিম্ন আয়ের ১ হাজার ২০০ পরিবারের বাসস্থানের ব্যবস্থা হবে।

 

তিনি বলেন, এ প্রকল্পে একজন নিন্ম আয়ের মানুষ মাসিক সর্বোচ্চ ২০০০ টাকা পরিশোধ করে ৮ থেকে ৯ বছর পর একটি ফ্ল্যাটের মালিক হতে পারবেন। এ আবাসনে সকল নাগরিক সুবিধা বিদ্যমান থাকবে।

 

আলোচনায় অংশ নিয়ে অন্যান্য বক্তারা বলেন, সরকার মানুষের অন্ন ও বস্ত্রের মৌলিক চাহিদা পূরণের পাশাপাশি সবচেয়ে প্রয়োজনীয় চাহিদা বাসস্থান পূরণে কাজ করে যাচ্ছে। যার অন্যতম দৃষ্টান্ত হল স্বল্প ঋণ সুদে গৃহঋণ প্রকল্প।

 

গোলটেবিল বৈঠকে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন অর্থনীতিবিদ ড. আহসান এইচ মনসুর, সিপিডি’র ড. বিনায়ক সেন, রিহ্যাবের ভাইস প্রেসিডেন্ট লিয়াকত আলী ভূঁইয়া, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক আব্দুল মোমেন, বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব প্লানার্র্স এর সাধারণ সম্পাদক আক্তার মাহমুদ, স্থপতি খালিদ আশরাফ, বিজিএমই এর প্রতিনিধি মাহমুদ হাসান খান বাবু, শ্রমিক নেতা বাবুল আক্তার প্রমুখ।

 

এর আগে ‘শহরের নিম্ন আয়ের মানুষের টেকসই আবাসন’ শীর্ষক ২ দিনব্যাপী প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন সাবেক গর্ভনর ড. মোহাম্মদ ফরাসউদ্দিন।

 

 

পছন্দের আরো পোস্ট