বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে শিক্ষামন্ত্রী

শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেছেন, জঙ্গিবাদ থেকে দূরে রাখতে শিক্ষার্থীদের মূল্যবোধসম্পন্ন, সৃজনশীল হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। তিনি বলেন, শুধু ভালো গাড়ি চড়লে, বড় স্কুল-কলেজে পড়লেই হবে না। শিক্ষার্থীদের সবার আগে ভালো মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। এজন্য বেশি বেশি ভালো বই পড়াতে হবে। এমন বই, যা তাদের বিবেক জাগ্রত করবে।

 

শনিবার রাজধানীর বাংলামোটরে বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রে আয়োজিত পাঠাভ্যাস উন্নয়ন কর্মসূচির সেরা সংগঠকদের পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেন, সৃজনশীল পদ্ধতির ওপর শিক্ষকদের বিশেষ প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে। কিন্তু সেটি নিয়ে শিক্ষকদের মধ্যে আরও কাজ করার উদ্যোগ কম। মুখস্থ করে, নকল করে বা যে কোনো প্রক্রিয়ায় শুধু পাস করলেই হবে না। শিক্ষার্থীদের প্রকৃত অর্থে সৃজনশীল করে তুলতে হবে, যেন শিক্ষকদের পড়ানোর পর একজন শিক্ষার্থী আরও পাঁচটি কাজ একাই করতে পারে। তবেই সৃজনশীল পদ্ধতি কাজে দেবে। জঙ্গিবাদকে বৈশ্বিক সমস্যা আখ্যায়িত করে তিনি বলেন, দুর্ভাগ্যজনকভাবে আমরাও জঙ্গিবাদের শিকার হচ্ছি। দেশের উচ্চবিত্ত পরিবারের মেধাবী ছেলেদের দলে ভেড়ানো হচ্ছে। সাম্প্রতিক জঙ্গি হামলার সঙ্গে জড়িত বিশ্ববিদ্যালয়ের যেসব শিক্ষার্থীর নাম এসেছে তাদের আগেই সতর্ক করা হয়েছিল বলে জানান শিক্ষামন্ত্রী।

 

Post MIddle

তিনি বলেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ১০ দিন অনুপস্থিত থাকলেই কোনো শিক্ষার্থী জঙ্গি- এমন কথা আমরা বলিনি। এ নিয়ে বিভ্রান্তির সৃষ্টি হয়েছে। আমরা বলেছি, ১০ দিন অনুপস্থিত থাকলে শিক্ষকরা এর কারণ খুঁজে দেখবেন। জঙ্গিবাদ প্রতিরোধে বই পড়া কর্মসূচি একটি ভালো উপায় বলে মনে করেন মন্ত্রী। তিনি বলেন, বর্তমানে উচ্চশিক্ষিত তরুণরা জঙ্গি হচ্ছে। তাদের বিভ্রান্ত করা হচ্ছে। ভালো বই পড়ালে তাদের সঠিক পথে রাখা সম্ভব। এটি তাদের প্রকৃত মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে পারে। অনুষ্ঠানে বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের সভাপতি অধ্যাপক আবদুল্লাহ আবু সায়ীদ বলেন, যেসব শিক্ষার্থী ন্যূনতম ৮০টি বই পড়বে তার দৃষ্টিভঙ্গি পরিবর্তন হবে। তার হৃদয় উন্নত হবে। নিজেকে ও দেশকে ভালোবাসতে শিখবে, পৃথিবীকে বড় করে দেখবে। তিনি বলেন, গাছের একটি কান্ড যাকে ঘিরে ডালপালা, তেমনি একটি পতাকাকে কেন্দ্র করে দেশের সবকিছু। অনুষ্ঠানে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সেকেন্ডারি এডুকেশন কোয়ালিটি অ্যান্ড এক্সেস এনহ্যান্সমেন্ট প্রজেক্টের (সেকায়েপ) আওতায় ঢাকা বিভাগের ৪৪ উপজেলা থেকে আসা ১৫৩ সংগঠককে সংবর্ধনা দেয়া হয়।#

 

আরএইচ

পছন্দের আরো পোস্ট