শাস্তি পেতে যাচ্ছেন কোচিংয়ে জড়িত শিক্ষকরা

সংসদে শিক্ষামন্ত্রীশিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেছেন, কোচিং বাণিজ্য বন্ধ করতে মনিটরিং কমিটি কাজ করছে। তাদের সুপারিশের ভিত্তিতে কোচিং বাণিজ্যে জড়িত শিক্ষকদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। এ ছাড়া প্রতিটি জেলায় একটি করে বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনে সরকারের পরিকল্পনা রয়েছে বলে শিক্ষামন্ত্রী জানান। বুধবার (১৫জুন) জাতীয় সংসদে প্রশ্নোত্তর পর্বে তিনি এসব কথা জানান।

 

সরকারি দলের সদস্য মুহা. গোলাম মোস্তফা বিশ্বাসের লিখিত প্রশ্নের জবাবে শিক্ষামন্ত্রী আরো বলেন, কোচিং নীতিমালা ২০১২ বাস্তবায়নের জন্য দেশের মেট্রোপলিটন ও বিভাগীয় শহর, জেলা, উপজেলা পর্যায়ে মনিটরিং কমিটি গঠিত হয়েছে। কোচিং বাণিজ্য বন্ধের লক্ষ্যে সরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের যেসব শিক্ষক দীর্ঘদিন একই প্রতিষ্ঠানে কর্মরত রয়েছে তাদের বদলি-পদায়নের কার্যক্রমও চালু রয়েছে।

 

Post MIddle

ওয়ার্কার্স পার্টির সদস্য বেগম হাজেরা খাতুনের প্রশ্নের জবাবে শিক্ষামন্ত্রী জানান, স্থানীয় আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি অবনতির আশঙ্কা না থাকলে দেশের সব উচ্চ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পর্যায়ক্রমে ছাত্রসংসদ নির্বাচনের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। তিনি বলেন, বাংলাদেশের ইতিহাসে ছাত্ররাজনীতির এক গৌরবোজ্জ্বল ভূমিকা রয়েছে। তাই গঠনমূলক ছাত্ররাজনীতির ধারা বজায় রাখার জন্য পর্যায়ক্রমে ছাত্রসংসদ নির্বাচনের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। দেশের বিভিন্ন কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ে অতীতে যেমন ছাত্রসংসদ কার্যকর ছিল তেমনি বর্তমানেও বেশ কিছুসংখ্যক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছাত্রসংসদ রয়েছে।#

 

আরএইচ

পছন্দের আরো পোস্ট