প্যানেলভুক্ত শিক্ষক নিয়োগে আইনি জটিলতা

সারা দেশের প্যানেল শিক্ষকদের নিয়োগের বিষয়ে উচ্চ আদালতের রায়ের পরিপ্রেক্ষিতে সবার নিয়োগের বিষয়টি প্রায় চূড়ান্ত ছিল। কিন্তু সৃষ্টপদে নিয়োগ নিয়ে আইনি জটিলতা থাকায় সরকারি আদেশ সত্ত্বেও ২৮ হাজারের মধ্যে ১৪ হাজার প্যানেল শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া যাচ্ছে না। প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

 

জানানো হয়, ২০১০ সালে ‘প্যানেল শিক্ষক’ পদটি সৃষ্টি করা হয়। সৃ্ষ্টপদটিতে প্রধান শিক্ষক নিয়োগ দেওয়ার বিধান রয়েছে। আর প্রধান শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে একটা মামলা আদালতে চলমান থাকায় প্যানেলভুক্ত শিক্ষকদের সহকারী শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ দেওয়া সম্ভব হবে না।

 

চূড়ান্ত নিয়োগের অপেক্ষায় প্যানেলভুক্ত প্রার্থী রয়েছেন প্রায় ২৮ হাজার। কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে, আইনি জটিলতায় এই মুহূর্তে ১৪ হাজারেরও কম শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া সম্ভব হবে। সারা দেশে জাতীয়করণ হওয়া বিদ্যালয়গুলোর মধ্যে ২২ হাজার ৯২৫টিতে পঞ্চম পদ সৃষ্টি করা হয়েছে। অর্থাৎ এসব বিদ্যালয়ে চারজন সহকারী শিক্ষক ও একজন প্রধান শিক্ষক থাকবেন। কিন্তু প্রধান শিক্ষক নিয়োগের ব্যাপারে এখন কিছু জটিলতা রয়েছে।

 

Post MIddle

প্রধান শিক্ষকের পদটি দ্বিতীয় শ্রেণির মর্যাদায় উন্নীত হওয়ায় এখন নতুন নিয়োগ দিতে হলে তা পিএসসির মাধ্যমে দিতে হবে। আর জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে যেসব সহকারী শিক্ষক পদোন্নতির যোগ্য হয়েছেন, উচ্চ আদালতে মামলা থাকায় সেসব শিক্ষককেও পদোন্নতি দেওয়া যাচ্ছে না।

 

তাই আপাতত প্রধান শিক্ষকহীন বিদ্যালয়ের সিনিয়র সহকারী শিক্ষকদের প্রধান শিক্ষক পদে পদোন্নতি দিয়ে একটি করে সহকারী শিক্ষকের পদ শূন্য করাও যাচ্ছে না বলে মন্ত্রণালয়ের সূত্র জানায়।##

 

লেখাপড়া২৪.কম/এমএইচ

 

 

পছন্দের আরো পোস্ট