শিক্ষকদের অবসর–সুবিধার ভোগান্তি কমাতে নানা উদ্যোগ

1809 (1)বেসরকারি এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারীদের অবসর ও কল্যাণ–সুবিধা পাওয়ার ক্ষেত্রে ভোগান্তি কমাতে সরকার এ খাতে সাড়ে ৬০০ কোটি টাকা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এর মধ্যে অবসর–সুবিধার জন্য ৫০০ কোটি টাকা ‘সিডমানি’ ও ১০০ কোটি টাকা থোক হিসেবে দেওয়া হচ্ছে। আর কল্যাণ–সুবিধার জন্য থোক বরাদ্দ দেওয়া হচ্ছে ৫০ কোটি টাকা। এ ছাড়া এই খাতে শিক্ষক-কর্মচারীদের কাছ থেকে কেটে নেওয়া মাসিক টাকার পরিমাণও বাড়ানো হচ্ছে।

 

শনিবার রাজধানীর ঢাকা শিক্ষক প্রশিক্ষণ কলেজে (টিটিসি) হজে যেতে ইচ্ছুক অবসরপ্রাপ্ত বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারীদের অবসর ও কল্যাণ–সুবিধার চেক প্রদান অনুষ্ঠানে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ এ কথা বলেন। অনুষ্ঠানে অবসরে যাওয়া ১ হাজার ৩৭ জনকে অবসর ও কল্যাণ–সুবিধার জন্য ৪৯ কোটি ৪১ লাখ ৪৮ হাজার টাকার চেক দেওয়া হয়।

 

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, অবসরে যাওয়া শিক্ষক-কর্মচারীদের অবসর–সুবিধার টাকা যথাযথ সময়ে পরিশোধ করতে দেশের বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর কাছ থেকে অর্থ সহায়তা নিয়ে একটি তহবিল গঠনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া শিক্ষক-কর্মচারীদের কাছ থেকে এত দিন মূল বেতনের যে অংশ কেটে রাখা হতো, তার হারও বাড়ানো হচ্ছে। এর মধ্যে প্রতি মাসে একেকজন শিক্ষক-কর্মচারীর কাছ থেকে অবসরের জন্য মূল বেতনের ৬ শতাংশ ও কল্যাণ-সুবিধার জন্য ৪ শতাংশ টাকা করা হচ্ছে। বর্তমানে একেকজন শিক্ষক-কর্মচারীর কাছ থেকে অবসরের জন্য ৪ শতাংশ ও কল্যাণ-সুবিধার জন্য ২ শতাংশ টাকা কেটে রাখা হয়।

 

Post MIddle

জানা গেছে, এমপিওভুক্ত বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারীরা অবসরে যাওয়ার চার বছর পরও অবসর ও কল্যাণ-সুবিধার টাকা পান না। এই তহবিলে যথেষ্ট পরিমাণ টাকা না থাকায় এ নিয়ে তাঁদের ভোগান্তির শেষ নেই। সারা দেশে এমপিওভুক্ত (সরকার থেকে মূল বেতনের শতভাগ পান) শিক্ষক-কর্মচারীর সংখ্যা প্রায় ৪ লাখ ৮০ হাজার। অবসরের পরপরই টাকা পাওয়ার কথা থাকলেও এ জন্য এখন তাঁদের চার বছর পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হয়। জীবনের শেষ প্রান্তে এসে নিজের প্রাপ্য টাকা পেতে দ্বারে দ্বারে ঘুরতে হয়। শুধু তা–ই নয়, বেশ কিছুসংখ্যক শিক্ষক অবসর–সুবিধার টাকা পাওয়ার আগেই মারা যান। বর্তমানে প্রায় ৪৪ হাজার শিক্ষক-কর্মচারী অবসর-সুবিধার টাকা পেতে অবসর-সুবিধা বোর্ডে আবেদন করেছেন। আর কল্যাণ-সুবিধার জন্য আবেদন জমা আছে প্রায় ৩০ হাজার। শিক্ষামন্ত্রী বলেন, নতুন পদক্ষেপের ফলে আবেদন জমাকারীদের অবসর ও কল্যাণ–সুবিধার চেক দেওয়ার পথ সুগম হবে।

 

শিক্ষাসচিব সোহরাব হোসাইনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের পরিচালক মো. ওয়াহিদুজ্জামান, বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান শিক্ষক-কর্মচারী অবসর–সুবিধা বোর্ডের সদস্যসচিব শরীফ আহমদ, কল্যাণ ট্রাস্টের সদস্যসচিব শাহজাহান আলম সাজু প্রমুখ।#

 

আরএইচ

পছন্দের আরো পোস্ট